Shri Narasimha Kavacham Iskcon -শ্রীনৃসিংহ কবচম্, স্তব, নাম_1

Shri Narasimha Kavacham Iskcon -শ্রীনৃসিংহ কবচম্, স্তব, নাম

1 min


189
158 shares, 189 points

Introduction

ভক্তপ্রবর প্রহ্লাদ মহারাজ শ্রীনৃসিংহদেব (Shri Narasimha)-কে জানান “হে শ্রীহরি, লোকে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা ও ভয় থেকে মুক্ত হওয়ার জন্য আপনার এই মঙ্গলময় নৃসিংহ-অবতার (Narasimha Avatar)-কে স্মরণ করবে।” 

শ্রীকৃষ্ণই আসুরিক নাস্তিক ভাবাপন্ন ব্যক্তিদের কাছে উগ্র-ভয়ংকর রূপে প্রকাশিত হন। অসুরেরা তাঁকে মৃত্যুরূপে দর্শন করেন। কিন্তু সেই নৃসিংহরূপ দেখে প্রহ্লাদের মতো ভক্তরা ভয় পান না। বরং অনাবিল স্নিগ্ধ আনন্দ অনুভব করেন।

দৈনন্দিন জীবনে ভক্তেরা কোথাও বেরোবার সময় বা যানবাহনে চড়বার সময় শ্রীনৃসিংহ-বন্দনা (Shri Narasimha Stotra) করে থাকেন।

TABLE OF CONTENTS

** ভগবান শ্রীনৃসিংহদেবের বাৎসল্য প্রেম **

ভগবানের পরম ভক্ত ও ভৃত্য প্রহ্লাদ মহারাজকে কঠোর ভাষায় তিরস্কার তাঁর পিতা হিরণ্যকশিপু বধ করতে উদ্যত হলে রাজসভাগৃহে এক তীব্র অদ্ভুত শব্দ শোনা যায়। এমন শব্দ এর আগে কেউ কখনও শোনে নি। সেই শব্দ শুনে অন্যান্য অসুর নায়েকেরা ভয় পেয়ে যায়। সভার সবাই সেই শব্দের উৎপত্তি বুঝতে পারছিল না। 

যখন প্রহ্লাদ মহারাজ তাঁর পিতাকে বলেন ভগবান সর্বত্র বিরাজমান, এমনকি এই সভার প্রত্যেক স্তম্ভের মধ্যে বিরাজমান। হিরণ্যকশিপু অত্যন্ত রাগে দম্ভে জিজ্ঞাসা করেন ” এখন তোমার ভগবান কোথায় রয়েছেন? তিনি কি এই স্তম্ভে রয়েছেন?” ভগবান অত্যন্ত কৃপালু ও ভক্তবৎসল। তাই ভক্তের কথার সত্যতা স্থাপনের জন্যে সেই স্তম্ভ থেকে বেরিয়ে আসেন ভগবান অর্ধ মানুষ ও অর্ধ সিংহের বিচিত্র  রুপ ধরে। এতে ব্রহ্মাও আশ্বস্ত হলেন তাঁর প্রতিজ্ঞা ভগবান রক্ষা করেছেন যে, হিরণ্যকশিপু কোন মানুষ অথবা পশু বধ করতে পারবে না। 

বিশাল নৃসিংহরুপী ভগবানকে দেখার পরেও মূঢ় অসুর হিরণ্যকশিপু চিনতে পারলেন না, উল্টে গদা দিয়ে তীব্র আক্রমন করলেন। সেক্ষেত্রে ভগবান তাকে নিষ্কৃতি হওয়ার সুযোগ দেন। হিরণ্যকশিপু ভাবলেন ভগবান তাঁর শক্তিতে ভয় পেয়েছেন। তারপর সে খড়গ ও ঢাল নিয়ে তীব্রভাবে ভগবানকে আক্রমন করেন। এরপর বিশালদেহী নৃসিংহদেবজী তাকে চেপে ধরেন, তাতে ব্যাথিত হিরণ্যকশিপু আঘাতের চেষ্টায় হাত-পা ছুঁড়তে থাকেন। শেষমেশ ভগবান নৃসিংহদেব সভাগৃহের দ্বারদেশে তাঁর ঊরুতে অসুরকে রেখে ধারালো নখ দিয়ে উদরকে ছিন্নভিন্ন করেন।             

হিরণ্যকশিপুকে হত্যা করার পর ভগবান শ্রী নৃসিংহ দেব নিজ সিংহাসনে বসলেন। তাঁর মুখ ও কেশর রক্তস্নাত হয়েছিল এবং সেই সঙ্গে অসুরের ক্ষুদ্রান্ত্র মালার মতো জড়িয়ে গিয়েছিল, ফলে ভগবানকে একদিকে অত্যন্ত সুন্দর দেখাচ্ছিল অন্যদিকে তাঁর বাক্রুদ্ধ ভঙ্গি, পূর্ণ তেজ ও ভয়ঙ্কর মুখমণ্ডল দেখে কেউ তার সামনে যাওয়ার সাহস পায়নি।

ব্রহ্মা, রুদ্র, ইন্দ্র, ঋষি, বিদ্যাধর, নাগ, মনু, প্রজাপতি, গন্ধর্ব, চারণ, যক্ষ, কিমপুরুষ প্রভৃতি সবাই দূর থেকে তাঁর প্রশংসা করতে লাগলেন এবং স্বর্গ থেকে পুষ্প বৃষ্টি করতে লাগলেন।  হিরণ্যকশিপুর ভয়ানক অবস্থা দেখে একই সাথে তারা খুব খুশি হল যে ভগবান রাক্ষস রাজা হিরণ্যকশিপুকে খেলার মধ্যেই বধ করেছেন।

ব্রহ্মা, রুদ্র, ও আদি দেবগণের প্রশংসা শুনেও ভগবানের ক্রোধ প্রশমিত হল না। বিষয়টির সমাধান না হওয়ায় ব্রহ্মা লক্ষ্মীর কাছে প্রার্থনা করলেন যে গিয়ে ঈশ্বরের ক্রোধ প্রশমিত করুন। এমনকি লক্ষ্মীও ভগবানের এমন ভয়ানক রূপের সামনে যাওয়ার সাহস সঞ্চয় করতে পারেননি।

তখন ব্রহ্মাজী  শ্রী প্রহ্লাদ মহারাজকে কিছু করতে বললেন কারণ ভগবান শ্রী প্রহ্লাদ মহারাজকে রক্ষা করার জন্যই এমন বাক্রুদ্ধ রূপ ধারণ করেছিলেন।

প্রহ্লাদজী অতি সরল ভঙ্গিতে সমস্ত দেবদেবীকে প্রণাম করলেন এবং ভগবান শ্রীনৃসিংহ দেবের সামনে গিয়ে সাষ্টাঙ্গে প্রণাম করলেন।

ভগবানকে তাঁর প্রিয় ভক্তের কাছে প্রণাম করতে দেখে, বাৎসল্য প্রেমে পরিপূর্ণ হয়েছিলেন, তিনি প্রহ্লাদের মাথায় তাঁর দিব্য হাতের তালু রাখলেন। যার কারণে প্রহ্লাদ ব্রম্ভজ্ঞান লাভ করেন। তিনি ঈশ্বরের প্রশংসা করতে লাগলেন “জন্ম, ঐশ্বর্য, বিদ্যা, তপস্যা, যোগবল আদি কোন কিছুর দ্বারাই ভগবানের প্রসন্নতা বিধান করা যায় না৷ একমাত্র শুদ্ধ ভক্তির দ্বারাই ভগবানের প্রসন্নতা বিধান করা সম্ভব৷ না৷ ভগবদ্গীতায় বলা হয়েছে যে, কেবল ভক্তি দ্বারাই ভগবানকে জানা যায় (ভক্ত্যা মামভিজানাতি)৷ ভগবান যদি ভক্তের সেবায় প্রসন্ন না হন, তা হলে তিনি নিজেকে প্রকাশ করেন না (নাহং প্রকাশঃ সর্বস্য যোগমায়াসমাবৃতঃ)। এটিই সমস্ত শাস্ত্রের অভিমত৷ 

ভগবানের কারও প্রার্থনা ও সেবার প্রয়োজন হয় না, কিন্তু ভক্ত যদি তাঁকে প্রার্থনা নিবেদন করেন, তা হলে ভক্তের মহা লাভ হয়৷ তাই, নিম্ন কুলে জন্ম অজ্ঞান ব্যক্তিরাও ঐকান্তিকভাবে ভগবানের উদ্দেশ্যে প্রার্থনা নিবেদন করতে পারেন, এবং ভগবান তা স্বীকার করেন৷ কেউ যখন ভগবানের প্রার্থনা করেন, তৎক্ষণাৎ তিনি ব্রহ্মভূত স্তরে অধিষ্ঠিত হন৷

ভগবান নৃসিংহদেব কেবল প্রহ্লাদ মহারাজ জীর মঙ্গলের জন্যই আবির্ভূত হননি, তিনি সমগ্র মানব-সমাজের কল্যাণের জন্য আবির্ভূত হয়েছিলেন৷ ভগবান নৃসিংহদেবের প্রচণ্ড রূপ অভক্তদের কাছে অত্যন্ত ভয়ানক বলে মনে হতে পারে, কিন্তু ভক্তদের কাছে তিনি তাঁর অন্য রূপের মতোই স্নেহপরায়ণ৷ জড় জগতে বদ্ধ জীবন অত্যন্ত ভয়ঙ্কর; প্রকৃতপক্ষে ভক্ত অন্য কোন কিছুর ভয়ে ভীত নন৷ ভব-ভয়ের কারণ অহঙ্কার৷ তাই প্রতিটি জীবের জীবনের চরম লক্ষ্য হচ্ছে ভগবানের দাসের অনুদাস হওয়া৷ এই জগতে জীবের দুর্দশাগ্রস্ত অবস্থার নিবৃত্তি কেবল ভগবানের কৃপার প্রভাবেই সম্ভব৷ 

তাই প্রতিটি জীবের কর্তব্য তথাকথিত জড় সুখের প্রতি আকৃষ্ট না হয়ে, সর্বতোভাবে ভগবানের শ্রীপাদপদ্মের শরণাগত হওয়া৷ সেটিই হচ্ছে মানব-জীবনের উদ্দেশ্য৷ ইন্দ্রিয়সুখ ভোগের প্রতি আকৃষ্ট হওয়া মূর্খতা মাত্র৷ ভগবানের ভক্ত হওয়া বা অভক্ত হওয়া উচ্চ অথবা নিচকুলে জন্মগ্রহণের উপর নির্ভর করে না৷ 

তিনি ভগবান শ্রীনৃসিংহদেবকে ক্রোধ ত্যাগ করতে বলেন কারন তাঁর পিতা মহা অসুর হিরণ্যকশিপু এখন নিহত হয়েছে। ঠিক যেমন সাধু ব্যক্তি কোনও সৰ্প অথবা বৃশ্চিক হত্যা করে আনন্দিত হন, তেমনি সমগ্র জগৎবাসী এই অসুরের মৃত্যুতে পরম সন্তোষ লাভ করেছেন। এখন তারা তাদের সুখ সম্বন্ধে নিশ্চিত হয়েছে, এবং ভয় থেকে মুক্ত হওয়ার জন্য তারা সর্বদা আপনার এই মঙ্গলময় অবতারকে স্মরণ করবে।”

ভগবান শ্রীনৃসিংহ খুশি হয়ে প্রহ্লাদ মহারাজকে বর চাইতে বললেন। প্রহ্লাদ মহারাজ বললেন- প্রভু! আমার কোন ইচ্ছা নেই, আমি কোন বর চাই না।

ভগবান নৃসিংহ বললেন- প্রহ্লাদ! আমি তোমাকে কিছু দিতে চাই। অতএব, আমার ইচ্ছা পূরণের জন্য, একটি বর চাও।

প্রহ্লাদ মহারাজ বললেন- হে ভগবান! আমাকে এমন বর দাও যে চাওয়ার ইচ্ছা আমার অন্তরে নেই।

ভগবান হেসে বললেন- এটা ঠিক না। আমাকে কিছু বর জিজ্ঞাসা করুন।

তখন শ্রী প্রহ্লাদ মহারাজ বললেন- যদি ভগবান তাঁকে বর দিতে চান, তা হলে তিনি যেন এই বর প্রদান করেন, যেন তাঁর হৃদয়ে কখনও জড় বাসনার উদয় না হয়। কাম অত্যন্ত অনিষ্টকর। তার উদয়ে ইন্দ্রিয়, মন, প্রাণ, আত্মা, ধর্ম, ধৈর্য, বুদ্ধি, লজ্জা, শ্রী, তেজ, স্মৃতি, সত্য— সব কিছুই বিনষ্ট হয়ে যায়। হৃদয়ে যখন আর কোন জড় বাসনা থাকে না, তখনই কেবল শুদ্ধ ভক্তিতে ভগবানের সেবা সম্পাদন করা যায়।

প্রহ্লাদের ঐকান্তিক ভক্তিতে ভগবান অত্যন্ত প্রসন্ন হয়েছিলেন। প্রহ্লাদ ভগবানের কাছে কোন বর না চাইলেও ভগবান তাঁকে একটি বর প্রদান করেছিলেন—তিনি এই জগতে পূর্ণরূপে সুখী হবেন এবং তাঁর পরবর্তী জীবনে তিনি বৈকুণ্ঠলোকে নিবাস করবেন। ভগবান তাঁকে আশীর্বাদ করেছিলেন যে, তিনি মন্বন্তর কাল পর্যন্ত এই জড় জগতের রাজা হবেন, এবং এই জড় জগতে থাকলেও তিনি ভগবানের মহিমা শ্রবণ করার সুযোগ পাবেন এবং নিষ্কাম ভক্তিযোগ অবলম্বনে ভগবানের সেবা সম্পাদন করে সর্বতোভাবে ভগবানের উপর নির্ভর করবেন। ভগবান প্রহ্লাদ মহারাজকে উপদেশ দিয়েছিলেন ভক্তিযোগের মাধ্যমে যজ্ঞ অনুষ্ঠান করতে, কারণ সেটি রাজার কর্তব্য।

শ্রী প্রহ্লাদ মহারাজ তা স্বীকার করে ভগবান নৃসিংহদেবকে বললেন ‘আমার বাবা আপনাকে আক্রমণ করেছেন। তাকে ক্ষমা করুন এবং পবিত্র করুন এবং তার প্রতি দয়া করুন।’

ভগবান বললেন- প্রহ্লাদ! তোমার বাবা আমাকে দেখেছেন, স্পর্শ করেছেন, তাতে কি তিনি শুদ্ধ হননি? যে বংশে তুমি জন্মেছ এই বংশ কি এখনও অপবিত্র রয়ে গেছে? প্রহ্লাদ ! ভক্তির প্রভাবে কেবল তোমার পিতাই লাভবান হননি, একই সাথে সেই বংশের একুশ জন্মের পিতা-মাতা রক্ষা পেয়েছেন, তারা ভগবানের অধিবাস পেয়েছেন। ভগবান প্রহ্লাদ মহারাজকে তাঁর পিতার ঔর্ধ্বদৈহিক কার্য সম্পাদন করার উপদেশও প্রদান করেছিলেন।

এমনই কৃপা-ভগবান নৃসিংহ দেবের।

উগ্রম্‌ বীরম্‌ মহাবিষ্ণুম্‌

জ্বলন্তম্‌ সর্বতোমুখম্ ৷

নৃসিংহম্‌ ভীষণম্‌ ভদ্রম্‌

মৃত্যোমৃত্যুম্‌ নমাম্যহম্ ৷৷

** প্রহ্লাদ মহারাজের মহান গুণাবলী **

মহা অসুর হিরণ্যকশিপুর চার সুযোগ্য পুত্রের মধ্যে প্রহ্লাদ ছিল সর্বশ্রেষ্ঠ। সমস্ত দিব্য গুণ তাঁর মধ্যে ছিল কারণ তিনি ছিলেন ভগবানের শুদ্ধ ভক্ত। প্রহ্লাদের গুণাবলী হলঃ

১! ব্রাহ্মণ গুণ সম্পন্ন, শম, (মন সংযত), দম (দশ ইন্দ্রিয়কে সর্বতোভাবে সংযতকরণ), তপ, শৌচ, ক্ষান্তি (সমস্ত জীবের প্রতি দয়ালু এবং সৌহার্দ্যপরায়ণ), সরলতা, জ্ঞান, বিজ্ঞান ও আস্তিক্য এ সবই তাঁর মধ্যে ছিল।

২! সৎ চরিত্র, তাঁর আচরণে কোনও দোষ পাওয়া যেত না।

৩! তিনি পরম সত্যকে জানতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ, পরমসত্য পরমেশ্বর ভগবানকে তিনি সর্বদা দর্শনের যত্ন করতেন।

৪! সম্মানিত ব্যক্তিদের কাছে তিনি কৃত্যের মতো আচরণ করতেন, দরিদ্রদের প্রতি পিতার মতো বাৎসল্য প্রকাশ করতেন। সমান ব্যক্তিদের প্রতি ভায়ের মতো অনুরক্ত ছিলেন। গুরু ও জ্যেষ্ঠ গুরুভাইদের প্রতি ঈশ্বরতুল্য সম্মান করতেন।

৫! বিদ্যা, ঐশ্বর্য, সৌন্দর্য ও আভিজাত্য জনিত গর্ব থেকে প্রহ্লাদ সম্পূর্ণরূপে মুক্ত ছিলেন।

৬! অসুর পরিবারে জন্ম নিয়েও আসুরিক না হয়ে শ্রীকৃষ্ণের পরম ভক্ত ছিলেন।

৭! চরম বিপদেও তিনি উদ্বিগ্ন হতেন না।

৮! প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে বৈদিক সকাম কর্মে তিনি আগ্রহী ছিলেন না।

৯! সমস্ত জড়বস্তুকে তিনি অর্থহীন মনে করতেন, তাই সমস্ত কামনা বাসনা থেকে সম্পূর্ণ মুক্ত ছিলেন।

১০! শৈশব থেকে শিশুসুলভ খেলাধুলার সামগ্রীর প্রতি উদাসীন ছিলেন। কেবল শ্রীকৃষ্ণ ভাবনায় মগ্ন থাকতেন।

১১! জগতের সহস্র সহস্র বিচিত্র সুখদুঃখের ঘটনা নিয়ে দুনিয়ার লোক নিমগ্ন হলেও প্রহ্লাদ সে সবেতে ভ্রূক্ষেপ করতেন না। তাঁর শ্রীকৃষ্ণ ভাবনাময় চিত্তে সেগুলি প্রভাব বিস্তার করত না।

১২! তিনি শ্রীকৃষ্ণ কর্তৃক আলিঙ্গিত হতেন। তাই বুঝতে পারতেন না কি বসেছেন, কি শুয়ে আছেন, কি ভোজন করছেন, কি জলপান করছেন, কি বেড়াচ্ছেন, কি কথা বলছেন, এ সমস্ত দৈহিক প্রয়োজনগুলি তাঁর আপনা-আপনি অনুষ্ঠিত হয়ে চলত।

১৩! শ্রীকৃষ্ণপ্রেমে বিহ্বল চিত্তে তিনি কখনও কাঁদতেন, কখনও হাসতেন, কখনও আনন্দ প্রকাশ করতেন, কখনও উচ্চস্বরে কীর্তন করতেন, কখনও ভগবানকে দর্শন করে পূর্ণ উৎকণ্ঠার বশে উচ্চস্বরে তাঁকে ডাকতেন, কখনও আনন্দে উদ্দণ্ড নৃত্য করতেন, কখনও শ্রীকৃষ্ণ ভাবনায়, তন্ময় হয়ে ভগবানের লীলার অনুকরণ করতেন। কখনও ভগবানের করকমলের ছোঁয়া পেয়ে আনন্দে মৌন থাকতেন, কখনও বা তাঁর শরীর রোমাঞ্চিত হত, কখনও বা কৃষ্ণপ্রেমে অর্ধনিমীলিত চোখে অশ্রুধারা ঝরে পড়ত।

ভগবানের শুদ্ধভক্ত শ্রীনারদমুনির সঙ্গপ্রভাবে শিশু প্রহ্লাদের ভক্তি বৈশিষ্ট্য লাভ হয়েছে। তাই তিনি নিরন্তর ভগবানের পাদপদ্ম সেবায় যুক্ত হয়েছিলেন।

প্রহ্লাদ মহারাজকে দর্শন করেই অসংখ্য লোক শুদ্ধ পবিত্র জীবনযাপন করতে আন্তরিক প্রেরণা লাভ করত। প্রহ্লাদ মহারাজকে দর্শন করেই লোকের দিব্য আনন্দ হত।

জয় ভগবান শ্রী নৃসিংহদেব।

জয় প্রহ্লাদ মহারাজ।

হরে কৃষ্ণ হরে কৃষ্ণ কৃষ্ণ কৃষ্ণ হরে হরে,
হরে রাম হরে রাম রাম রাম হরে হরে।

Shri Narasimha Kavacham Iskcon -শ্রীনৃসিংহ কবচম্, স্তব, নাম_2

** নৃসিংহ চতুর্দশী ব্রত মাহাত্ম্য  **

হিন্দু শাস্ত্র অনুসারে, প্রতি বছর বৈশাখ মাসের শুক্লা চতুর্দশী তিথিতে নৃসিংহ জয়ন্তী বা নৃসিংহ চতুর্দশী পালিত হয়।  বিশ্বাস করা হয় যে এই তিথিতে ভগবান বিষ্ণু ভক্ত প্রহ্লাদকে রক্ষা করার জন্য নৃসিংহের অবতার গ্রহণ করেছিলেন এবং হিরণ্যকশিপুকে হত্যা করেন এবং তার একান্ত ভক্ত প্রহ্লাদকে এর সন্ত্রাস থেকে রক্ষা করেন। ভগবান বিষ্ণু নৃসিংহ অবতারে অর্ধেক সিংহ ও অর্ধেক মানুষের রূপ ধারণ করেছিলেন। তাই ভগবানের এই রূপকে বলা হতো নৃসিংহ রূপ

নৃসিংহ বিষ্ণুর চতুর্থ অবতার। পুরাণ, উপনিষদ ও অন্যান্য প্রাচীন হিন্দু ধর্মগ্রন্থে তার উল্লেখ রয়েছে। তিনি হিন্দুদের জনপ্রিয়তম দেবতাদের অন্যতম। সাধারণত দুষ্টের দমন ও শিষ্টের পালনের অন্যতম প্রতীক তিনি ৷ প্রাচীন মহাকাব্য অনুসারে এক হাজার বছরেরও বেশি সময় ধরে তার পূজা প্রচলিত রয়েছে। অতীতে শাসক ও যোদ্ধারা নৃসিংহের পূজা করতেন। হিন্দুদের বিশ্বাস অনুযায়ী, নৃসিংহ মহারক্ষক, তিনি ভক্তকে তার প্রয়োজনের সময় সর্বদা রক্ষা করে থাকেন।

বৃহন্নারসিংহ পুরাণে ভগবান শ্রীনৃসিংহদেব ভক্ত প্রহ্লাদকে বললেন —

বর্ষে বর্ষে তু কর্তব্যম্‌ মম সন্তুষ্টি কারণম্ ।

মহা গুহ্যমিদম্‌ শ্রেষ্ঠম্‌ মানবৈর্ভবভীরুভিঃ ॥

“প্রতি বছর আমার সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে চতুর্দশী ব্রত কর্তব্য। জন্ম-মৃত্যুময় সংসার ভয়ে ভীত মানুষ এই পরম গোপনীয় ও শ্রেষ্ঠ ব্রত পালন করবে।” বৈশাখ মাসের শুক্লা চতুর্দশীতে শ্রীনৃসিংহদেব আবির্ভূত হয়েছিলেন, তাই এই তিথিতে ব্রতপালনপূর্বক তাঁর পূজা ও উৎসব করতে হয়।

শ্রীনৃসিংহদেব বললেন, আমার ব্রতদিন জেনেও যে ব্যক্তি লঙ্ঘন করে, চন্দ্র-সূর্য যতদিন থাকবে ততদিন নরক যন্ত্রণা ভোগ করবে। যদিও আমার ভক্তরা এই ব্রত করে থাকে তবুও প্রত্যেকের এই ব্রতে অধিকার আছে।

প্রহ্লাদ বললেন, হে ভগবান্! হে নৃসিংহরূপ! হে সকল দেবগণের আরাধ্য প্রভু আপনাকে প্রণাম জানাই। আমি জিজ্ঞাসা করছি, হে প্রভু, তোমার প্রতি আমার ভক্তি কিরূপে উৎপন্ন হল? কিরূপে আমি তোমার প্রিয় ভক্ত হলাম?

শ্রীনৃসিংহদেব বললেন, হে বুদ্ধিমান একান্ত মনে শোনো। প্রাচীন কল্পে তুমি ব্রাহ্মণ ছিলে, কিন্তু বেদপাঠ করনি। তোমার নাম ছিল বসুদেব এবং তুমি ছিলে বেশ্যাসক্ত। তোমার কোন সুকর্ম ছিল না, কেবল একটি মাত্র আমার ব্রত করেছিলে। সেই ব্রত প্রভাবে তোমার এরকম আমার প্রতি ভক্তি হয়েছে।

প্রহ্লাদ বললেন, হে নৃসিংহ! হে অচ্যুত! হে প্রভু! আমি কার পুত্র হয়ে কি করতাম? বেশ্যাসক্ত অবস্থায় কিভাবে তোমার ব্রত করলাম? দয়া করে বলুন।

শ্রীনৃসিংহদেব বললেন, পুরাকালে অবন্তীপুরে এক বেদজ্ঞ ব্রাহ্মণ ছিল। তার নাম ছিল বসুশর্মা। ধর্মপরায়ণ ও বৈদিক ক্রিয়া অনুষ্ঠানে তৎপর। তাঁর ভার্যা জগৎপ্রসিদ্ধা সুশীলা পতিব্রতা সদাচারিণী। তাদের পাঁচ পুত্র ছিল। চারজন ছিল সদাচারী, বিদ্বান, পিতৃভক্ত। কিন্তু কনিষ্ঠ পুত্রটি ছিল অসদাচারী, সর্বদা বেশ্যাসক্ত, সুরাপায়ী। সেই কনিষ্ঠ পুত্রটি ছিলে তুমি। নিত্য বেশ্যাগৃহেই তুমি বসবাস করতে।

এক বনমধ্যে তুমি ও সেই তোমার বান্ধবী বেড়াতে গিয়েছিলে। তোমরা মনে করেছিলে দিনটা বেশ ভালোই কাটবে। কিন্তু তোমাদের নিজেদের মধ্যে চরিত্র বিষয়ে বিশেষ রকমে কলহ বেধে যায়। তোমাদের মধ্যে মনোমালিন্যের কারণে মৌনভাবে তোমরা আলাদাভাবে একটি স্থানে এসে বসেছিলে। সেখানে তুমি অতি পুরানো ধ্বংসাবশেষ গৃহ নিদর্শন স্বরূপ কিছু ইট পাথর দেখেছিলে। সেই নির্জন স্থানে আলাদাভাবে উপবেশন করে তোমরা দুইজন ক্রন্দন করছিলে আপন আপনভাবে। সারাদিন তোমরা অনাহারী ছিলে, এমনকি জল পর্যন্ত পান করনি। সারারাতও তোমরা জাগরিত ছিলে।

ক্লান্ত শরীরে দুঃখিত অন্তরে মনোমালিন্য ভাবে তুমি সেখানে শুয়ে পড়ে প্রার্থনা করছিলে, “হে ভগবান, হে শ্রীহরি, এই জগতের কত লোক সুন্দর! আমার মা-বাবা কত সুন্দর ধর্মপ্রাণ। আমার ভাইয়েরা কত সুন্দর। তারা নিষ্ঠাবান, চরিত্রবান। কিন্তু আমি অধঃপতিত। আমি মহা মন্দমতি। আমি চরিত্রহীন। পথের পাগলের চেয়েও অধম। হে ভগবান, ভালো লোকেরা তোমার শরণাগত। আমি মূর্খ কারও শরণাগত নই। আমি অতি নিঃসঙ্গ। আমি বড় অসহায় অবস্থায় তোমার কাছে প্রার্থনা করছি, হে ভগবান, আমাকে বিশুদ্ধ জীবন দান করো।” এভাবে তুমি ক্রন্দন করছিলে।

আর তোমার বান্ধবী, সেও একান্ত মনে প্রার্থনা করছিল, “হে ভগবান, আমি সমাজের মধ্যে সবচেয়ে জঘন্য স্তরের জীব। সভ্য সমাজ থেকে আমি বিক্ষিপ্ত ও বিচ্ছিন্ন। এই জগতে অনেক নিষ্ঠাবতী সাধ্বী সুন্দরী নারী রয়েছে। আর, আমি মহাপাপী গণিকাবৃত্তি করেই জীবন নষ্ট করেছি। প্রতিদিনই কেবল পাপের বোঝা বাড়িয়েছি। নরকযাতনা কতই না এই পোড়া কপালে অপেক্ষা করছে। ভদ্র সমাজে কেউ কোনওদিন আমাকে তাকাতেও চায় না। আমিও এই জগতের কোনও পথ খুঁজে পাই না। হে পরম করুণাময় ভগবান, যদি তোমার অহৈতুকী কৃপাদৃষ্টি আমার প্রতি থাকে তবে দয়া করে আমার এই জীবন পরিবর্তন করে দাও!” এভাবে সে আকুল অন্তরে ক্রন্দন করতে লাগল। 

শ্রীনৃসিংহদেব বললেন, হে প্রহ্লাদ, সেই স্থানটি ছিল আমার প্রাচীন মন্দির। সেই দিনটি ছিল বৈশাখ মাসের শুক্লা চতুর্দশী—আমার আবির্ভাবের দিন। তোমরা উপবাসী ছিলে, রাত্রি জাগরণ করছিলে, জীবনের কল্যাণ প্রার্থনা করছিলে। অর্থাৎ অজ্ঞাতসারেই তোমরা আমার পরম-মঙ্গলময় চতুর্দশী ব্রত পালন করেছিলে। সেই ব্রত প্রভাবে তুমি এ জন্মে আমার প্রিয় ভক্তরূপে জন্মগ্রহণ করেছ। আর সেই বেশ্যাও স্বর্গলোকে অপ্সরা জীবন লাভ করে ত্রিভুবনে সুখচারিনী হয়েছে।

হে প্রহ্লাদ! আমার ব্রতের প্রভাব শোনো 

🚩 সৃষ্টিশক্তি লাভের উদ্দেশ্যে ব্রহ্মা আমার এই চতুর্দশী ব্রত পালন করেছিলেন,

🚩 ত্রিপুরাসুরকে বধের উদ্দেশ্যে মহাদেব এই ব্রত করেছিলেন,

🚩 স্বর্গসুখ লাভের জন্যই দেবতারা চতুর্দশী ব্রত পালন করে থাকেন, 

🚩 বেশ্যাও এই ব্রত প্রভাবে ত্রিলোকে সুখচারিনী হয়ে থাকেন।

🚩 যে সমস্ত মানুষ আমার এই ব্রতশ্রেষ্ঠ পালন করবে, শতকোটি কল্পেও তাদের সংসারে পুনরাগমন নেই।

🚩 আমার ব্রত প্রভাবে অপুত্রক ভক্তপুত্র লাভ করে, দরিদ্র ধনশালী হয়, তেজস্কামী তেজঃলাভ করে, রাজ্যকামী রাজ্য পায়, আয়ুষ্কামী দীর্ঘায়ু লাভ করে। স্ত্রীলোকেরা আমার এই চতুর্দশী ব্রত পালন করলে ভাগ্যবতী হয়, এই ব্রত সৎপুত্র প্রদ, অবৈধব্যকর ও পুত্রশোক বিনাশন, দিব্য সুখপ্রদ। স্ত্রী-পুরুষ যারা এই উত্তমব্রত পালন করে, তাদের আমি সুখ ও ভুক্তি-মুক্তি ফল দান করি।

হে প্রহ্লাদ, দুরাত্মাদের আমার ব্রত পালনে মতি হয় না। পাপকর্মেই সর্বদা তাদের মতি। 

** কিভাবে নৃসিংহ চতুর্দশী পালন করবেন ? **

ভগবান শ্রী নৃসিংহদেব প্রহল্লাদ মহারাজকে উদ্দেশ্য করে এই উক্তিটি করেন – যে ব্যাক্তি নৃসিংহ চতুর্দশী ব্রত তিথি জেনেও পালন করেন না, চন্দ্র, সূর্য যতদিন থাকবে ততদিন তাকে নরক যন্ত্রনা ভোগ করতে হবে।

*এক নৃসিংহ চতুর্দশী = ১০,০০০ দূর্গা অষ্টমীর উপবাস*

*এক নৃসিংহ চতুর্দশী= ১০০০ একাদশীর সমান।*

কলিযুগে শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভু একাদশীকে মহাব্রত বলেছে। 

এখন আমরা জানবো কিভাবে এই ব্রত পালন করবো।

🚩- আগের দিন অর্থ্যাৎ আজ নিরামিষ আহার করবেন। নেশাজাতীয় যে কোন দ্রব্য চা, কফি, তামাক জাতীয় দ্রব্য অবশ্যই বর্জন করবেন।

🚩- রাতে ঘুমোতে যাওয়ার আগে অবশ্যই দন্তমার্জন করে তারপর ঘুমাতে যাবেন।

🚩- উপবাসের দিন ব্রহ্ম মুহুর্তে (মোটামুটি ভোর ৪ টা থেকে ৪ঃ৩০ টা) নিদ্রা ত্যাগ করে শৌচকর্ম ও স্নানাদি সম্পন্ন করে নেবেন।

🚩- বৈশাখী শুক্লা চতুর্দশী ব্রত পালনকারীরা পাপাচারীদের সঙ্গে কথা বলবে না, মিথ্যা আলাপ বর্জন করবে, স্ত্রীসম্ভাষণ বর্জন করবে, দ্যূতক্রীড়া (বা জুয়াখেলা) ত্যাগ করে ভগবানের রূপগুণলীলার কথা স্মরণ করবে। 

🚩- সন্ধ্যা বা গৌধূলী লগ্ন পর্যন্ত নির্জলা উপবাস করবেন। গোধূলি লগ্নে শ্রীনৃসিংহদেবের অভিষেক নৃসিংহদেবকে দুধ, দই, ঘি, মধু, মিছরির জল এবং ফলের রস দিয়ে অভিষেক করবেন (নৃসিংহদেবের চিত্রপটে অভিষেক করা যাবে)। তারপর অভিষেকের চরণামৃত দিয়ে উপবাস ভেঙ্গে একাদশীর ন্যায় অনুকল্প প্রসাদ গ্রহণ করা যেতে পারে। নৃসিংহদেবের শ্রী বিগ্রহ বা চিত্রপট না থাকলে শ্রী নারায়ণ বিগ্রহ বা চিত্রপটে ভোগ নিবেদন করে (পঞ্চশস্য ব্যতীত একাদশীর মতো) প্রসাদ গ্রহণ করা যেতে পারে। যেমন ভিন্ন প্রকারের ফল, জল, দুধ, দই, ভেজা বাদাম, ভাজা বাদাম, আলুর দম বা তরকারি, সবজি, সবজির স্যুপ, ইত্যাদি। এছাড়া আলু ছোট করে টুকরো করে বাদাম দিয়ে এক বিশেষ ভোগ দিতে পারেন। (রান্না ঘি দিয়ে করলে উত্তম, তবে সূর্যমুখী তেল বা বাদাম তেল ব্যবহার করতে পারেন)। তবে নির্জলা ব্রতই উত্তম।

কিন্তু ব্রতের দিন অন্ন, রুটি, লুচি, পরোটা গ্রহণ করা যাবে না। তবে অবশ্যই নৃসিংহদেবকে “পান্‌কম” নিবেদন করতে পারেন। “পনকম্” হলো শীতল জল, তাল-মিছরি, লেবুর রস এবং আদা দিয়ে তৈরি একরকম পানীয় যা নৃসিংহদেবের অত্যন্ত প্রিয়।

নিচে পান্কম বানানোর রেসিপি দেয়া হলোঃ-

● চার কাপ ঠাণ্ডা জল
● অর্ধেক চামুচ এলাচি ক্রাশ করা
● এক চামুচ আদা রস
● অল্প কেশর
● একটি লেবু
● এক বাটি গুঁড়

এই সবগুলো উপাদান এক সাথে মিশিয়ে তারপর ছেঁকে ভগবান নৃসিংহ দেবকে নিবেদন করতে পারেন।

বি.দ্রঃ-ভক্তসংখ্যানু্যায়ী উপকরণের পরিমাণ বাড়বে।

🚩- নৃসিংহ লীলা মহিমা পাঠ করবেন, নৃসিংহদেবের ১০৮ টি নাম অবশ্যই পাঠ করবেন (নিচে দেওয়া আছে)। যারা সদা গ্রহাদির পীড়ন ভোগ করছেন তারা নৃসিংহ চতুর্দশী তিথিতে উপবাস থেকে ১০৮ জোড়া তুলসীপাতা দ্বারা নৃসিংহ দেবের অষ্টোত্তর শতনাম (১০৮) পাঠ করে চরণে অর্পণ করলে সমস্ত অপগ্রহাদির উপদ্রুব বিদূরিত হয়৷ 

🚩- বেশি বেশি হরিনাম জপ (কমপক্ষে ১৬ মালা, যেখানে ১মালা = ১০৮ বার) করবেন।

হরে কৃষ্ণ হরে কৃষ্ণ কৃষ্ণ কৃষ্ণ হরে হরে,
হরে রাম হরে রাম রাম রাম হরে হরে।

🚩- বাড়িতে শ্রীমদ্ভাগবত থাকলে শ্রীমদ্ভাগবতের ৭ (সপ্তম) স্কন্ধের ৮ম অধ্যায় শ্রীনৃসিংহদেবের আবির্ভাব লীলা পাঠ করুন। অথবা শুদ্ধভক্তের নিকট থেকে শ্রবণ করুন। ব্রতের দিন নৃসিংহদেবের প্রণাম মন্ত্র এবং স্তব পাঠ করুন (নিচে দেওয়া আছে। মনে রাখবেন নৃসিংহদেব অত্যন্ত কৃপালু।তিনি ভক্তের মনোবাসনা অবশ্যই পূরণ করবেন। তিনি অত্যন্ত করুণাময়। তিনি তাঁর ভক্তকে সর্ববিপদ থেকে রক্ষা করেন, যেমন—-তাঁর ভক্ত প্রহ্লাদকে রক্ষা করেছিলেন।

🚩- পরিশেষে উপবাসের পর দিন সূর্যোদ্বয়ের পর অন্ন ভোগ নিবেদন করে সেই অন্ন প্রসাদ গ্রহন করে এই ব্রত সুসম্পন্ন করবেন।

হরেকৃষ্ণ।

আপনি নিজে এই ব্রতটি পালন করুন এবং অন্যকেও পালন করতে সহযোগীতা করুন। দুরারোগ্য রোগ থেকে মুক্তি পেতে, বৈশাখী চতুর্দশীতে পালন করুন এই নিয়মগুলি।

** শ্রীনৃসিংহদেব স্তব **

( Shri Narasimha Stava)

জয় নৃসিংহ শ্ৰী নৃসিংহ ।

য় জয় জয় শ্রীনৃসিংহ ৷৷ ১ ৷৷

উগ্রম্‌ বীরম্‌ মহাবিষ্ণুম্‌

জ্বলন্তম্‌ সর্বতোমুখম্ ৷

নৃসিংহম্‌ ভীষণম্‌ ভদ্রম্‌

মৃত্যোমৃত্যুম্‌ নমাম্যহম্ ৷৷ ২ ৷৷

শ্রীনৃসিংহ জয় নৃসিংহ জয় জয় নৃসিংহ ।

প্রহ্লাদেশ জয়পদ্মমুখ পদ্মভৃঙ্গম্ ৷৷ ৩ ৷৷

তব করকমলবরে নখম্অ‌দ্ভুতশৃঙ্গম্

দলিতহিরণ্যকশিপু তনুভূঙ্গম্ ।

কেশব ধৃত-নরহরিরূপ জয় জগদীশ হরে ।। ৪ ৷৷

ভাবানুবাদঃ

জয় নৃসিংহ শ্ৰী নৃসিংহ ।

জয় জয় জয় শ্রীনৃসিংহ ৷৷

উগ্রম্‌ বীরম্‌ মহাবিষ্ণুম্‌

জ্বলন্তম্‌ সর্বতোমুখম্ ৷

নৃসিংহম্‌ ভীষণম্‌ ভদ্রম্‌

মৃত্যোমৃত্যুম্‌ নমাম্যহম্ ৷৷

“জয় শ্রীনৃসিংহ, জয় শ্রীনৃসিংহদেব, শ্রীনৃসিংহদেবের জয় হোক, জয় হোক, জয় হোক। সর্বদিক প্রজ্জ্বলনকারী উগ্র বীর, মহাবিষ্ণু, তিনি মৃত্যুরও মৃত্যুস্বরূপ, সেই ভীষণ ভদ্র শ্রীনৃসিংহদেবকে প্রণাম জানাই।” (ব্রহ্মসংহিতা)

শ্রীনৃসিংহ জয় নৃসিংহ জয় জয় নৃসিংহ ।

প্রহ্লাদেশ জয়পদ্মমুখ পদ্মভৃঙ্গম্ ৷৷

“প্রহ্লাদের প্রভু, লক্ষ্মীদেবীর মুখপদ্মের প্রতি ভ্রমর রূপ শ্রীনৃসিংহদেবের জয় হোক, শ্রীনৃসিংহদেবের জয় হোক, জয় হোক।”

শ্রীদশাবতার স্তোত্রে কবি জয়দেব গেয়েছেন—

তব করকমলবরে নখম্অ‌দ্ভুতশৃঙ্গম্

দলিতহিরণ্যকশিপু তনুভূঙ্গম্ ।

কেশব ধৃত-নরহরিরূপ জয় জগদীশ হরে ।।

“হে কেশব! যখন আপনি নৃসিংহরূপ ধারণ করেছিলেন, তখন আপনার করকমলের নখাবলী অতি আশ্চর্যাবহ অগ্রভাগযুক্ত হয়েছিল। আপনি ওই নখ দিয়ে দৈত্যরাজ হিরণ্যকশিপুর তনুভৃঙ্গটিকে বিদারিত করেছিলেন। হে নৃসিংহরূপী জগদীশ! হে হরে! আপনার জয় হোক।”

** শ্রীনৃসিংহদেব প্রনাম **

নমস্তে নরসিংহায় প্রহ্লাদাহ্লাদ-দায়িনে ।

হিরণ্যকশিপোর্বক্ষঃ শিলাটঙ্ক-নখালয়ে ৷৷ ১ ৷৷

ইতো নৃসিংহঃ পরতো নৃসিংহো ।

যতো যতো যামি ততো নৃসিংহঃ ।।

বৰ্হিনৃসিংহো হৃদয়ে নৃসিংহো ।

নৃসিংহমাদিম্ শরণম্ প্রপদ্যে ।। ২ ৷৷

তব করকমলবরে নখম্অ‌দ্ভুতশৃঙ্গম্

দলিতহিরণ্যকশিপুতনুভৃঙ্গম্ ।

কেশব ধৃত-নরহরিরূপ জয় জগদীশ হরে ।। ৩ ৷৷

ভাবানুবাদঃ

শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভু প্রতিদিন পুরীর জগন্নাথ মন্দিরের সম্মুখে বাইশ পাহাচ (সিঁড়ি) দিয়ে উঠাকালীন বাঁদিকে নৃসিংহবিগ্রহ দর্শন করে প্রণতি নিবেদন করে নৃসিংহপুরাণের দুটি শ্লোক বারবার আবৃত্তি করতেন।

নমস্তে নরসিংহায় প্রহ্লাদাহ্লাদদায়িনে । 

হিরণ্যকশিপোর্বক্ষঃ শিলাটঙ্ক নখালয়ে ॥

“হে নৃসিংহদেব, আমি আপনাকে আমার সশ্রদ্ধ প্রণতি নিবেদন করি। আপনি প্রহ্লাদ মহারাজকে আনন্দ দান করেন, এবং পাথর কাটার ধারালো টঙ্কের মতো আপনার নখ দিয়ে আপনি হিরণ্যকশিপুর বক্ষ বিদীর্ণ করেছিলেন।”

ইতো নৃসিংহঃ পরতো নৃসিংহো ।

যতো যতো যামি ততো নৃসিংহঃ ।।

বৰ্হিনৃসিংহো হৃদয়ে নৃসিংহো ।

নৃসিংহমাদিম্ শরণম্ প্রপদ্যে ।।

“নৃসিংহদেব এখানে রয়েছেন এবং তিনি অন্য দিকেও রয়েছেন। যেখানেই আমি যাই সেখানেই আমি শ্রীনৃসিংহদেবকে দর্শন করি। তিনি আমার হৃদয়ে রয়েছেন এবং তিনি বাহিরেও রয়েছেন। তাই আমি আদিপুরুষ পরমেশ্বর ভগবান শ্রীনৃসিংহদেবের শরণ গ্রহণ করি।”

শ্রী মদ্ভাগবতের ‘ভাবার্থদীপিকা’ নামক টীকা লিখতে গিয়ে শ্রীল শ্রীধর স্বামী শ্রীনৃসিংহদেবের বন্দনা করেছেন—

বাগীশা যস্য বদনে লক্ষ্মীৰ্যস্য চ বক্ষসি ৷

যস্যাস্তে হৃদয়ে সংবিৎ তম্‌ নৃসিংহমহম্‌ ভজে ॥

“বাক্‌দেবী সরস্বতী যাঁর বদনে এবং লক্ষ্মীদেবী যাঁর বক্ষোদেশে, দিব্য জ্ঞান বা সম্বিৎশক্তি যাঁর হৃদয়ে বিরাজমান, সেই শ্রীনৃসিংহদেবকে আমি ভজনা করি।” “

প্রহ্লাদহৃদয়াহ্লাদম্‌ ভক্তাবিদ্যাবিদারণম্ ।

শরদিন্দুরুচিম্‌ বন্দে পারীন্দ্রবদনাম্‌ হরিম্ ॥

“প্রহ্লাদ মহারাজের হৃদয়ে নিয়ত আনন্দদানকারী, ভক্তের অবিদ্যা নিধনকারী, চন্দ্রকিরণের মতো স্নিগ্ধ করুণা বিতরণকারী, সিংহের মতো বদনমণ্ডল সেই শ্রীহরিকে বন্দনা করি।”

** হরিবর্ষবাসী সপার্ষদ শ্রীপ্রহ্লাদ মহারাজের প্রার্থনা **

ওঁ নমো ভগবতে নরসিংহায়

নমস্তেজস্তেজসে আবিরাবির্ভব বজ্রনখ বজ্রদংষ্ট্র ।

কর্মাশয়ান্ রন্ধয় রন্ধয় তমো গ্রস গ্রস

ওঁ স্বাহা অভয়মভয়মাত্মনি ভূয়িষ্ঠাঃ ওঁ ক্রৌম্‌ ইতি ॥

ভগবান শ্রীনৃসিংহদেবকে নমস্কার। হে সর্ব তেজের উৎস, হে বজ্রনখ, হে বজ্রদংষ্ট্রা, আমাদের আসুরিক কর্মবাসনা সমূলে বিনাশ করো। আমাদের অজ্ঞান-অন্ধকার বিদূরিত করো। আমাদের হৃদয়ে অভয়রূপে তুমি আবির্ভূত হও।

স্বস্ত্যস্ত বিশ্বস্য খলঃ প্রসীদতাং

ধ্যায়ন্তু ভূতানি শিবং মিথো ধিয়া ।

মনশ্চ ভদ্রং ভজতাদধোক্ষজে

আবেশ্যতাম্‌ নো মতিরপ্যহৈতুকী ৷৷

নিখিল বিশ্বের মঙ্গল হোক। খল ঈর্ষাপর ব্যক্তিরা অনুকূল হোক। সর্বজীব ভক্তিযোগ অনুশীলন করুক। তারা পরস্পরের মঙ্গল চিন্তা করে শান্ত হোক। সবাই কৃষ্ণভজনা করুক। আমাদের মতি শ্রীকৃষ্ণপদকমলে নিবিষ্ট হোক।

মাগারদারাত্মজবিত্তবন্ধুষু

সঙ্গো যদি স্যাদ্‌ ভগবৎ প্রিয়েষু নঃ ৷

য প্রাণবৃত্ত্যা পরিতুষ্ট আত্মবান্

সিদ্ধ্যত্যদূরান্ন তথেন্দ্ৰিয়প্রিয়ঃ ॥

হে প্রভু, কোন বিষয়েই যেন আমাদের আসক্তি না হয়। যদি আসক্তিই হয়, তবে গৃহ-স্ত্রী-পুত্র-বিত্ত বন্ধু-বান্ধব সমন্বিত সংসার কারাগারের প্রতি না হয়ে যেন য়ে যেন তোমার প্রিয় ভক্তদের প্রতিই হয়।

Shri Narasimha Kavacham Iskcon -শ্রীনৃসিংহ কবচম্, স্তব, নাম_3

** শ্রীনৃসিংহ কবচম্ (প্রহ্লাদ মহারাজ কর্তৃক) **

( Shri Narasimha Kavacham)

নৃসিংহকবচম্  বক্ষ্যে প্রহ্লাদেনোদিতম্ পুরা ।

সর্বরক্ষাকরম্ পুণ্যম্ সর্বোউপদ্রবনাশনম্ ॥ ১ ॥

 

সর্ব সম্পৎকরম্ চৈব স্বর্গমোক্ষপ্রদায়কম্ ।

ধ্যাত্বা নৃসিংহম্ দেবেশম্ হেমসিংহাসনস্থিতম্ ॥ ২ ॥

 

বিবৃতাস্যম্ ত্রিনয়নম্ শরিদন্দুসমপ্রভম্ ।

লক্ষ্ম্যালিঙ্গিতবামাঙ্গম্  বিভূতিভিরু উপাশ্রিতম্ ॥ ৩ ॥

 

চতুর্ভুজম্ কোমলঅঙ্গম্  স্বর্ণকুণ্ডলশোভিতম্ ।

সরোজশোভিতোরস্কম্ রত্নকেয়ূরমুদ্রিতম্ ॥ ৪ ॥ [var রত্নকেয়ূরশোভিতম্]

 

তপ্তকাঞ্চনসঙ্কাশম্ পীতনির্মলবাসনম্ ।

ইন্দ্রাদিসুরমৌলিস্থ  স্ফ ু রণমাণিক্যদীপ্তিভিঃ ॥ ৫ ॥

 

বিরাজিতপদদ্বন্দ্বম্  শঙ্খচক্রাদি হেতিভিঃ ।

গরুরাত্মা চ সবিনয়ম্  স্তূয়মানম্ মুদান্বিতম্ ॥ ৬ ॥

 

স্বহৃত্কমলসংবাসম্ কৃত্বা তু কবচম্ পঠেত্ ।

নৃসিংহো মে শিরো পাতু লোকরক্ষা আত্মসম্ভবঃ ॥ ৭ ॥

 

সর্বগোঽপি স্তম্ভবাসঃ ফালম্ মে রক্ষতু ধ্বনিম্ ।

নৃসিংহো মে দৃশৌ পাতু সোমসূর্যাগ্নিলোচনঃ ॥ ৮ ॥

 

স্মৃতিম্ মে পাতু নৃহরির্মুনিবর্যস্তুতিপ্রিয়ঃ ।

নাসাম্ মে সিংহনাসস্তু  মুখম্ লক্ষ্মীমুখপ্রিয়ঃ ॥ ৯ ॥

 

সর্ববিদ্যাধিপঃ পাতু নৃসিংহো রসনাম্ মম ।

বক্ত্রং পাত্বিন্দুবদনম্  সদা প্রহ্লাদবন্দিতঃ ॥ ১০ ॥

 

নৃসিংহঃ পাতু মে কণ্ঠম্  স্কংধৌ ভূভরনান্তকৃত্ ।

দিব্যঅস্ত্রশোভিতভুজো নৃসিংহঃ পাতু মে ভুজৌ ॥ ১১ ॥

 

করৌ মে দেববরদো নৃসিংহঃ পাতু সর্বতঃ ।

হৃদয়ম্ যোগিসাধ্যশ্চ নিবাসম্ পাতু মে হরিঃ ॥ ১২ ॥

 

মধ্যম্ পাতু হিরণ্যাক্ষবক্ষঃকুক্ষিবিদারণঃ ।

নাভিম্ মে পাতু নৃহরিঃ স্বনাভি ব্রহ্মসংস্তুতঃ ॥ ১৩ ॥

 

ব্রহ্মান্ডকোটয়ঃ কট্যাম্ যস্যাসৌ পাতু মে কটিম্ ।

গুহ্যম্ মে পাতু গুহ্যানাম্ মন্ত্রানাম্ গুহ্যরূপধৃক্ ॥ ১৪ ॥

 

ঊরূ মনোভবঃ পাতু জানুনী নররূপধৃক্ ।

জঙ্ঘে পাতু ধরাভারহর্তা যোঽসৌ নৃকেসরী ॥ ১৫ ॥

 

সুররাজ্যপ্রদঃ পাতু পাদৌ মে নৃহরীশ্বরঃ ।

সহস্রশীর্ষা পুরুষঃ পাতু মে সর্বশস্তনুম্ ॥ ১৬ ॥

 

মহোগ্রঃ পূর্বতঃ পাতু মহাবীরঅগ্রজোঽগ্নিতঃ ।

মহাবিষ্ণুরর্দক্ষিণে তু মহাজ্বালস্তু নৈরৃতৌ ॥ ১৭ ॥

 

পশ্চিমে পাতু সর্বেশো দিশি মে সর্বতোমুখঃ ।

নৃসিংহঃ পাতু বায়ব্যাম্ সৌম্যাম্ ভূষণবিগ্রহঃ ॥ ১৮ ॥

 

ইশ্যান্যে পাতু ভদ্রো মে সর্বমঙ্গলদায়কঃ ।

সংসারভয়তঃ পাতু মৃত্যোরর্মৃত্যুরর্নৃকেসরী ॥ ১৯ ॥

 

ইদম্ নৃসিংহকবচম্ প্রহ্লাদমুখমণ্ডিতম্ ।

ভক্তিমান্যঃ পঠেন্নিত্যম্ সর্বপাপৈঃ প্রমুচ্যতে ॥ ২০ ॥

 

পুত্রবান্ ধনবান্ লোকে দীর্ঘায়ুরুপজায়তে ।

যম্ যম্ কাময়তে কামান্‌ তম্ তম্ প্রাপ্নোত্যসংশয়ম্ ॥ ২১ ॥

 

সর্বত্র জয়মআপ্নোতি সর্বত্র বিজয়ী  ভবেত্ ।

ভূম্যন্তরিক্ষ দিব্যানাম্ গ্রহাণাম্ বিনিবারণম্ ॥ ২২ ॥

 

বৃশ্চিকোউরগসম্ভূত বিষঅপহরণম্ পরম্ ।

ব্রহ্মরাক্ষসযক্ষাণাম্ দূরোত্সারণকারণম্ ॥ ২৩ ॥

 

ভূর্জে বা তালপত্রে বা কবচম্ লিখিতম্ শুভম্ ।

করমূলে ধৃতম্ যেন সিধ্যেয়ুঃ কর্মসিদ্ধয়ঃ ॥ ২৪24 ॥

 

দেবাসুরমনুষ্যেষু স্বং স্বমেব জয়ম্ লভেত্ ।

একসন্ধ্যম্ ত্রিসন্ধ্যম্ বা যঃ পঠেন্নিয়তো নরঃ ॥ ২৫ ॥

 

সর্বমঙ্গলমাঙ্গল্যম্ ভুক্তিম্ মুক্তিম্ চ বিংদতি ।

দ্বাত্রিম্ শতিসহস্রাণি পঠেত্‌  শুদ্ধআত্মনাম্ নৃণাম্ ॥ ২৬ ॥

 

কবচস্যাস্য মন্ত্রস্য মন্ত্রসিদ্ধিঃ প্রজায়তে ।

অনেন মন্ত্ররাজেন কৃত্বা ভস্মাভিমন্ত্রম্‌ ॥ ২৭ ॥

 

তিলকম্‌ বিন্যসেদ্যস্তু তস্য গ্রহভয়ম্‌  হরেত্ ।

ত্রিবারম্‌ জপমানস্তু দত্তম্‌ বার্যভিমন্ত্র্য  চ ॥ ২৮ ॥

 

প্রাশযেদ্যো নরো মন্ত্রম্‌ নৃসিংহধ্যানমাচরেত্ ।

তস্য রোগাঃ প্রনশ্যন্তি যে চ স্যুঃ কুক্ষিসম্ভবাঃ॥ ২৯ ॥

 

কিমত্র বহুনোক্তেন নৃসিংহসদৃশো ভবেত্ ।

মনসা চিন্তিতম্‌ যত্তু স তচ্চআপ্নোত্যসংশয়ম্ ॥ ৩০ ॥

 

গর্জন্তম্‌ গর্জয়ন্তম্‌ নিজভুজপটলম্‌ স্ফোটয়ন্তম্‌ হঠন্তম্‌

রূপ্যন্তম্‌ তাপয়ন্তম্‌ দিবি ভুবি দিতিজম্‌ ক্ষেপযন্তম্‌ ক্ষিপন্তম্‌।

ক্রন্দন্তম্‌ রোষয়ন্তম্‌ দিশি দিশি সততম্‌ সংহরন্তম্‌ ভরন্তম্‌

বীক্ষন্তম্‌ ঘূর্ণয়ন্তম্‌ শরনিকরশতৈর্দিব্যসিংহম্‌ নমামি ॥

 

ইতি শ্রীব্রহ্মান্ডপুরাণে প্রহ্লাদোক্তম্‌ শ্রী নৃসিংহ কবচম্ ।

** শ্রীনৃসিংহ কবচম্ (শ্রীব্রহ্মসংহিতা থেকে ব্রহ্মা  কর্তৃক)**

( Shri Narasimha Kavacham)

শ্রীনারদ উবাচ

ইন্দ্রাদিদেববৃন্দেশ! তাতেশ্বর! জগৎপতে!

মহাবিষ্ণোনৃরসিংহস্য কবচম্‌ ব্রুহি মে প্রভো!

যস্য প্রপঠনাদ বিদ্বান্ ত্রৈলোক্য-বিজয়ী ভবেৎ ॥ ১

শ্রীব্রহ্মোবাচ

শৃণু নারদ! বক্ষ্যামি পুত্রশ্রেষ্ঠ! তপোধন।

কবচম্‌ নরসিংহস্য ত্ৰৈলোক্য-বিজয়াভিধম্ ॥ ২॥

 

যস্য প্রপঠনাদ্‌বাগ্মী  ত্রৈলোক্য-বিজয়ী ভবেৎ ৷

স্রষ্টাহম্‌ জগতাম্‌ বৎস! পঠনাদ্ধারণাদ্‌ যতঃ ॥ ৩ ॥

 

লক্ষ্মীজগত্ৰয়ম্‌ পাতি সংহর্তা চ মহেশ্বরঃ ।

পঠনাদ্ধারণাদ্দেবা বভূবুশ্চ দিগীশ্বরাঃ ৷৷ ৪ ৷৷

 

ব্রহ্মমন্ত্রময়ম্‌ বক্ষ্যে ভূতাদি-বিনিবারকম্ ।

যস্য প্রসাদাদ্দুর্বাসাস্ত্ৰৈলোক্য-বিজয়ী মুনিঃ ।

পঠনাদ্ধারণাদ্‌ যস্য শাস্তা চ ক্রোধভেরয়ঃ ॥ ৫ ॥

 

ত্রৈলোক্য-বিজয়স্যাস্য কবচস্য প্রজাপতিঃ ।

ঋষিশ্ছন্দশ্চ গায়ত্রী নৃসিংহো দেবতা বিভুঃ ॥ ৬ ॥

 

ক্ষ্রৌং  বীজম্‌ মে শিরঃ পাতুঃ চন্দ্রবর্ণো মহামনুঃ ৷

উগ্রম্‌ বীরম্‌ মহাবিষ্ণুম্‌ জ্বলন্তম্‌ সৰ্বতোমুখম্ ॥ ৭ ॥

 

নৃসিংহম্‌ ভীষণম্‌ ভদ্রম্‌ মৃত্যু-মৃত্যুম্‌ নমাম্যহম্ ৷

দ্বাত্রিংশদক্ষরো মন্ত্রো মন্ত্ররাজঃ সুরদ্রুমঃ ॥ ৮ ॥

 

কণ্ঠম্‌ পাতু  ধ্র ু,বম্‌ ক্ষ্রৌম্‌ হৃদ্‌ভগবতে চক্ষুষী মম । 

নরসিংহায় চ জ্বালামালিনে পাতু মস্তকম্ ॥ ৯ ॥

 

দীপ্তদংষ্ট্রায় চ তথাগ্নিনেত্রায় চ নাসিকাম্ ।

সর্বরক্ষোঘ্নায় সর্বভূত-বিনাশনায় চ ॥ ১০ ৷৷

 

সর্বজ্বর-বিনাশায় দহ দহ পচ দ্বয়ম্ ৷

রক্ষ রক্ষ সর্বমন্ত্র স্বাহা পাতু মুখম্‌ মম ৷৷ ১১ ৷৷

 

তারাদি-রামচন্দ্রায় নমঃ পায়াদ্‌গুদম্‌ মম ।

ক্লীম্‌ পায়াৎ পাণিযুগ্মঞ্চ তারম্‌ নমঃ পদম্‌ ততঃ ।

নারায়ণায় পার্শ্বঞ্চ আং হ্রীম্‌ ক্লৌম্‌ ফ্ৰৌম্‌ চ হুম্‌ ফট্ ॥ ১২ ৷৷

 

ষড়ক্ষরঃ কটিম্‌ পাতু ওঁ নমো ভগবতে পদম্ ।

বাসুদেবায় চ পৃষ্ঠম্‌ ক্লীম্‌ কৃষ্ণায় ঊরুদ্বয়ম্ ॥ ১৩॥

 

ক্লীম্‌ কৃষ্ণায় সদা পাতু জানুনী চ মনূত্তমঃ ৷

ক্লীম্‌ গ্লৌম্‌ ক্লীম্‌ শ্যামলাঙ্গায় নমঃ পায়াৎ পদদ্বয়ম্ ॥ ১৪ ৷৷

 

ক্ষ্রৌম্‌ নরসিংহায় ক্ষ্রৌঞ্চ সর্বাঙ্গম্‌ মে সদাবতু ॥ ১৫ ॥

 

মিত ম্যাচ ইতি তে কথিতম্‌ বৎস সর্বমন্ত্রৌঘবিগ্রহম্ ।

তব স্নেহ অন্ময়াখ্যাতম্‌ প্রবক্তব্যম্‌ ন কস্যচিৎ ৷৷ ১৬ ৷৷

 

গুরুপূজাম্‌ বিধায়াথ গৃহ্নীয়াৎ কবচম্‌ ততঃ ।

সর্বপুণ্যযুতো ভূত্বা সর্বসিদ্ধিযুতো ভবেৎ ৷৷ ১৭ ॥

 

শতমষ্টোত্তরঞ্চৈব পুরশ্চর্যাবিধিঃ স্মৃতঃ ৷

হবনাদীন্‌ দশাংশেন কৃত্বা সাধক-সত্তমঃ ॥ ১৮ ॥

 

ততস্তূ সিদ্ধকবচঃ পুণ্যাত্মা মদনোপমঃ ।

স্পর্ধামুদ্ধউয় ভবনে লক্ষ্মীবাণী বসেৎ ততঃ ৷৷ ১৯ ॥

 

পুষ্পাঞ্জল্যষ্টকম্‌ দত্ত্বা মূলেনৈব পঠেৎ সকৃৎ ।

অপি বর্ষ-সহস্ৰাণাম্‌ পূজায়াঃ ফলমাপ্নুয়াৎ ॥ ২০ ॥

 

ভূর্জে বিলিখ্য গুটিকাম্‌ স্বর্ণস্থাম্‌ ধারয়েদ যদি ৷

কণ্ঠে বা দক্ষিণে বাহৌ নরসিংহো ভবেৎ স্বয়ম্ ॥ ২১ ৷৷

 

যোষিদ্ বামভূজে চৈব পুরুষো দক্ষিণে করে ।

বিভৃয়াৎ কবচম্‌ পুণ্যম্‌ সর্বসিদ্ধিযুতো ভবেৎ ॥ ২২ ॥

 

কাকবন্ধ্যা চ যা নারী মৃতবৎসা চ যা ভবেৎ।

জন্মবন্ধ্যা নষ্টপুত্রা বহুপুত্রবতী ভবেৎ ॥ ২৩ ৷৷

 

কবচস্য প্রসাদেন জীবন্মুক্তো ভবেন্নরঃ ।

ত্রৈলোক্যম্‌ ক্ষোভয়ত্যেব ত্রৈলোক্য-বিজয়ী ভবেৎ ॥ ২৪ ।

 

ভূত-প্রেত-পিশাচাশ্চ রাক্ষসা দানবাশ্চ যে ।

তম্‌ দৃষ্টা প্রপলায়ন্তে দেশাদ্দেশান্তরম্‌ ধ্র ুবম্   ৷৷ ২৫ ৷৷

 

যস্মিন্ গেহে চ কবচম্‌ গ্রামে বা যদি তিষ্ঠতি ।

তম্‌ দেশন্তু পরিত্যজ্য প্ৰযান্তি চাতিদূরতঃ ॥ ২৬ ॥

 

ইতিশ্রীব্রহ্মসংহিতায়াং সপ্তদশাধ্যায়ে ত্রৈলোক্যবিজয়ং নাম শ্রীশ্রীনৃসিংহকবচং সম্পূর্ণম্ ॥

** শ্রীনৃসিংহদেব স্তব (শ্রীল শ্রীধর স্বামী কর্তৃক) **

জয় জয়াজিত জহ্যগজঙ্গমাবৃতিমজাম্‌ উপনীতমৃষাগুণাম্ ৷

ন হি ভবন্তমৃতে প্রভবন্ত্যমী নিগমগীতগুণার্ণবতা তব ॥১॥ 

“হে অজিত। আপনার বারংবার জয় হোক। স্থাবর-জঙ্গমরূপ অসত্য গুণে আশ্রিত মায়াকে আপনি বিনাশ করুন। কারণ আপনি ছাড়া অন্য কেউই এই কাজে সমর্থ নয়। সমস্ত বেদ আপনার অসীম গুণের কথা কীর্তন করেন।”

দ্রুহিণবহ্নিরবীন্দ্রমুখামরা জগদিদম্‌ ন ভবেৎ পৃথগ্‌উত্থিতম্ ৷

বহুমুখৈরপি মন্ত্রগণৈরজ স্ত্বমুরুমূর্তিরতো বিনিগদ্যসে ৷৷ ২ ৷৷ 

ব্রহ্মা, অগ্নি, সূর্য, ইন্দ্ৰাদি দেবতারা এবং এই বিশ্ব আপনা-আপনি স্বতন্ত্র হয়ে উদ্ভূত হতে পারে না। এই জন্যই বেদমন্ত্র অনন্তমুখে আপনাকে অজ ও অনন্তমূর্তি বলে বিশেষভাবে কীর্তন করেন।

সকলবেদগণেরিতসদ্গুণস্ত্বমিতি সর্বমনীষিজনা রতাঃ ।

ত্বয়ি সুভদ্রগুণশ্রবণাদিভিস্তব পদস্মরণেন গতক্লমাঃ ॥ ৩ ॥ 

অখিলবেদ আপনার সদ্গুণ প্রচার করেন। এ জন্যে মনীষিরা আপনার পরম মঙ্গলময় গুণ শ্রবণ কীর্তনে অনুরক্ত হয়ে আপনার পাদপদ্ম স্মরণ করে সর্ব সত্তাপ (রোগ, ভোগ, সংক্রমন, জ্বলন) থেকে মুক্ত হন।

নরবপুঃ প্রতিপদ্য যদি ত্বয়ি শ্রবণবর্ণনসংস্মরণাদিভিঃ ।

নরহরে ন ভজন্তি নৃণামিদম্‌ দৃতিবদ্উ‌চ্ছ্বসিতম্‌ বিফলম্‌ ততঃ ॥ ৪ ॥

হে নৃসিংহদেব! যারা মানুষদেহ লাভ করে আপনার কথা শ্রবণ কীর্তন স্মরণাদি দ্বারা ভজনা না করে, তাদের শ্বাস গ্রহণ বা জীবনধারণ হাপরের মতো বিফল।

উদরাদিষু যঃ পুংসাম্‌ চিন্তিতো মুনিবর্ত্মরভিঃ ।

 হন্তি মৃত্যুভয়ম্‌ দেবো হৃদ্‌গতম্‌ তমুপাস্মহে ৷৷ ৫ ॥

যোগপথে উদরাদি স্থানে স্থিত পদ্মতে স্মৃত বা চিন্তিত হয়ে যিনি যোগীদের মৃত্যু ভয় নাশ করেন, হৃদয়ে অবস্থিত সেই প্রভুকে আমরা ধ্যান করি।

স্বনির্মিতেষু কার্যেষু  তারতম্যবিবর্জিতম্ ।

সর্বানুস্যুতসন্মাত্রম্‌ ভগবন্তম্‌ ভজামহে ॥ ৬ ॥

যিনি স্বনির্মিত কার্য বা জীবদের বিষয়ে সৃষ্টি, স্থিতি ও প্রলয় ইত্যাদিতে তারতম্য বর্জিত ও সর্ব পদার্থে প্রবিষ্ট চিৎসত্তারূপে অবস্থিত সেই ভগবানকে আমরা ভজন করি।

ত্বদংশস্য মমেশান ত্বন্মায়াকৃতবন্ধনম্ ৷

ত্বদঙঘ্রিসেবামাদিশ্য পরানন্দ নিবর্তয় ॥ ৭ ॥

হে ঈশ্বর, হে পরানন্দ, আপনার চরণযুগলে সেবা প্রদান করে আপনার মায়ার বন্ধন থেকে আপনার অণুঅংশরূপে আমাকে মুক্ত করুন।

ত্বৎকথামৃতপাথোধৌ বিহরন্তো মহামুদঃ ।

কুৰ্বন্তি কৃতিনঃ কেচিচ্চতুর্বর্গম্‌ তৃণোপমম্ ॥ ৮ ॥ 

আপনার কথামৃতসমুদ্রে বিহারশীল মহানন্দযুক্ত কোন কোন কৃতি ব্যক্তি ধর্ম-অর্থ-কাম-মোক্ষকে তৃণতুল্য জ্ঞান করে থাকেন।

ত্বৰ্য্যাত্মনি জগন্নাথে মন্মনো রমতামিহ ৷

কদা মমেদৃশম্‌ জন্ম মানুষম্‌ সম্ভবিষ্যতি ॥ ৯ ॥

কি জানি কখন আবার এরকম মানুষ জন্ম পাব কি না ঠিক নেই। তাই হে জগন্নাথ, হে পরমাত্মা, এই জন্মেই আপনাতে আমার চিত্ত নিবিষ্ট হোক।

চরণস্মরণম্‌ প্রেম্ণা‌ তব দেব সুদুর্লভম্ ৷

যথাকথঞ্চি ননৃহরে মম ভূয়াদহরর্নিশম্ ॥ ১০ ॥

হে নৃসিংহদেব! প্রেমের সঙ্গে আপনার শ্রীচরণ স্মরণ অতি দুর্লভ হলেও আমার যে-কোনভাবে দিনরাত আপনার পাদপদ্ম স্মরণ সাধিত হোক।

ক্বাহম্‌ বুদ্ধ্যাদিসংরুদ্ধঃ ক্ব চ ভূমন্ মহস্তব ।

দীনবন্ধো দয়াসিন্ধো ভক্তিং মে নৃহরে দিশ ৷৷ ১১ ৷৷

হে ভূমন্! কোথায় অহংকার প্রভৃতি তত্ত্বে আচ্ছন্ন আমি আর কোথায় আপনার মহিমারাশি! হে দীনবন্ধু! হে দয়াসিন্ধু! হে নরহরি! আমাকে ভক্তি প্রদান করুন।

মিথ্যাতর্কসুকর্কশেরিত-মহাবাদান্ধকারান্তরে ।

ভ্রাম্যন্ মন্দমতেরমন্দমহিমংস্তজ্‌ জ্ঞানবৰ্ত্মা স্ফ ুটম্ ॥

শ্রীমন্মাধব বামন ত্রিনয়ন শ্রীশঙ্কর শ্রীপতে ।

গোবিন্দেতি মুদা বদন্ মধুপতে মুক্তঃ কদা স্যামহম্ ৷৷ ১২ ৷৷

হে অনন্তমহিমাময়! মিথ্যা তর্ক করে অতি কর্কশভাবে মহাবিবাদ রূপ অন্ধকার গর্ভে ভ্রমণ করতে করতে আমি মন্দমতি হয়েছি। তাই আমার কাছে আপনার তত্ত্বজ্ঞান পথ প্রকাশিত হল না। হে মধুপতি, হে মাধব, হে বামন, হে ত্রিনয়ন, হে শ্রীপতি, হে গোবিন্দ ইত্যাদি নাম আনন্দভরে বলতে বলতে কখন আমি মুক্ত হব?

যৎসত্ত্বতঃ সদাভাতি জগদেতদসৎ স্বতঃ ।

সদাভাসমসত্যস্মিন্ ভগবন্তম্‌ ভজাম তম্ ॥ ১৩ ৷৷

যাঁর সত্তাতে স্বভাবতই অসৎ এই জগৎ সৎরূপে প্রতিভাত হয়, এই অনিত্য জগতে নিত্যপ্রকাশ স্বরূপ সেই ভগবানকে ভজনা করি।

তপস্তু  তাপৈঃ প্রপতন্তু পর্বতা-দটন্তু  তীর্থানি পঠন্তু  চাগমান্ ।

যজন্তু  যাগৈর্বিরবদন্তু  বাদৈ-র্হররিম্‌ বিনা নৈব মৃতিম্‌ তরন্তি ॥ ১৪ ৷৷

মানুষেরা সূর্যাগ্নিতাপে তপ্ত হয়ে তপস্যা করুক, পর্বত থেকে পতিত হোক, সব তীর্থ ভ্রমণ করুক, সব শাস্ত্র পাঠ করুক, নানা যজ্ঞ অনুষ্ঠান করুক, কিংবা তর্ক বাদ বিসম্বাদ করুক, কিন্তু শ্রীহরির কৃপা ছাড়া মৃত্যুকে নিশ্চয়ই কেউ অতিক্রম করতে পারে না।

অনিন্দ্ৰিয়োঽপি যো দেবঃ সর্বকারকশক্তিধৃক্ ।

সর্বজ্ঞঃ সর্বকর্তা চ সর্বসেব্যম্‌ নমামি তম্ ॥ ১৫ ॥ 

যে ঈশ্বর প্রাকৃত-ইন্দ্রিয়রহিত হয়েও সর্বকর্তৃত্বশক্তি-বিশিষ্ট, সর্বজ্ঞ, সর্বকর্তা ও সবারই আরাধ্য, তাঁকেই আমি প্রণাম জানাই।

ত্বদীক্ষণবশ ক্ষোভমায়াবোধিত কর্মভিঃ ।

জাতান্ সংসরতঃ খিন্নান্ নৃহরে পাহি নঃ পিতঃ ॥ ১৬ ॥

হে পিতা, হে নৃসিংহ! আপনার দৃষ্টির ফলে ক্ষুব্ধামায়াদ্বারা প্রেরিত কর্মজাত ও সংসার ভ্রমণশীল খেদগ্রস্ত আমাদের রক্ষা করুন।

অন্তরর্যন্তা সর্বলোকস্য গীতঃ 

শ্র ুত্যা যুক্ত্যা চৈবমেবাবসেয়ঃ ।

যঃ সর্বজ্ঞঃ সর্বশক্তিনৃসিংহঃ 

শ্রীমন্তম্‌ তম্‌ চেতসৈবাবলম্বে ॥ ১৭ ৷৷ 

শ্র ুতি কর্তৃক যিনি সর্বলোকের অন্তর্যামী বলে কথিত, যুক্তিদ্বারাও এরূপ অবধারণীয়, যিনি সর্বজ্ঞ, সর্বশক্তিমান, যিনি লক্ষ্মীদেবীর সঙ্গে বিরাজিত, সেই শ্রীনৃসিংহদেবকে হৃদয়ে আশ্রয় করি।

যস্মিন্নুদ্যদ্বিলয়মপি যদ্ভাতি বিশ্বম্‌ লয়াদৌ

জীবোপেতম্‌ গুরুকরুণয়া কেবলাত্মাববোধে ।

অত্যন্তান্তং ব্রজতি সহসা সিন্ধুবৎ সিন্ধুমধ্যে

মধ্যেচিত্তম্‌ ত্রিভুবনগুরুম্‌ ভাবয়ে তম্‌ নৃসিংহম্ ॥ ১৮ ॥

জীবের সঙ্গে বিশ্ব লয়ের পূর্বে স্থিতিকালে যাতে প্রকাশিত থাকে, বিশ্বের লয় হলেও যাঁর প্রচুর করুণার জন্যে জীব বিশুদ্ধ আত্মস্বরূপ বোধ লাভ করে সমুদ্রমধ্যে নদীগুলির মতো আত্যন্তিক গতি লাভ করে, ত্রিলোকপূজ্য সেই শ্রীনৃসিংহদেবকে হৃদয়মধ্যে ভজনা করি।

সংসারচক্র-ক্রকচৈবিদীর্ণমুদীর্ণনানাভবতাপতপ্তম্ ।

কথঞ্চিদাপন্নমিহ প্রপন্নম্‌ ত্বমুদ্ধর শ্রীন্হরে নৃলোকম্ ৷৷ ১৯ ৷৷

হে শ্রীনৃসিংহদেব! সংসারচক্ররূপ করাত দ্বারা বিদীর্ণ নানাবিধ ভবতাপে তপ্ত ও বিপন্ন হয়ে কোনও প্রকারে শরণাগত হয়েছে এরকম ব্যক্তিদের আপনি উদ্ধার করুন।

যদা পরানন্দগুরো ভগবৎপদে পদম্‌ মনো মে ভগবঁল্লভেত।

তদা নিরস্তাখিলসাধনশ্রমঃ শ্রয়েয় সৌখ্যং ভবতঃ কৃপাতঃ ॥ ২০ ৷৷

হে ভগবান! যখন আপনার পাদপদ্মে আমার মন আশ্রয়লাভ করবে তখন আপনার কৃপায় অধিক সাধন শ্রম দূর হবে এবং পরমসুখ লাভ করব।

ভজতো হি ভবান্ সাক্ষাৎ পরমানন্দচিদ্‌ঘনঃ ।

আত্মৈব কিমতঃ কৃত্যম্‌ তুচ্ছদারসুতাদিভিঃ ॥ ২১ ॥

ভজনকারীর কাছে আপনি সাক্ষাৎ পরমানন্দ চিন্ময় বিগ্রহ পরমাত্মা। অতএব তুচ্ছ স্ত্রীপুত্রাদির প্রয়োজন কি?

মুঞ্চন্নঙ্গ তদঙ্গসঙ্গমনিশম্‌  ত্বামেব সঞ্চিন্তয়ন্ 

সন্তঃ সন্তি যতো যতো গতমদাস্তানাশ্রমানাবসন্ ।

নিত্যম্‌ তন্মুখ পঙ্কজাদ্বিগলিতত্বৎপুণ্যগাথামৃত – 

স্রোতঃ-সংপ্লব-সংপ্লুতো নরহরে ন স্যামহম্‌ দেহভৃৎ ॥ ২২ ৷৷

হে নৃসিংহ, স্ত্রীপুত্রাদির অঙ্গসঙ্গ পরিত্যাগ করে দিনরাত আপনাকেই চিন্তা করতে করতে অহংকারশূন্য সাধুরা যে যে স্থানে অবস্থান করেন, সেই সব আশ্রমগুলিতে অবস্থান করে নিত্য সেই সাধুদের মুখপদ্ম থেকে বিগলিত আপনার পবিত্র কথামৃত-স্রোতজলে স্নান করব। পুনরায় জড়দেহ ধারণ করব না।

উদ্ভুতম্‌ ভবতঃ সতোঽপি ভুবনম্‌ সন্নৈব সৰ্পঃ স্রজঃ

কুৰ্বৎ কার্যমপীহ কূটকনকং বেদোঽপি নৈবংপরঃ ।

অদ্বৈতম্‌ তব সৎ পরন্তু পরমানন্দম্‌ পদং তন্মুদা

বন্দে সুন্দরমিন্দিরানুত হরে মা মুঞ্চ মামানতম্ ॥ ২৩ ৷

নিত্যবস্তু আপনা থেকে উৎপন্ন হলেও জগৎ নিত্য নয়। যেমন ফুলের মালা থেকে উদ্ভূত সৰ্প সৎ বা নিত্য নয়। কৃত্রিম সোনার গয়না উৎপাদন করেও সৎ বা প্রকৃত সোনা নয়। বেদও এরূপ বলেন না।

হে ভগবান! আপনার সুন্দর পরমানন্দময় চরণ আমি বন্দনা করি। হে রমাবন্দিত শ্রীহরি! আপনাকে প্রণাম করি। আপনি আমাকে পরিত্যাগ করবেন না।

মুকুটকুণ্ডল-কঙ্কণ-কিঙ্কিণীপরিণতম্‌ কনকম্‌ পরমার্থতঃ ।

মহদহনকৃতি-খ-প্রমুখম্‌ তথা নরহরের্ন পরম্‌ পরমার্থতঃ ॥ ২৪ ৷৷

মুকুট-কুণ্ডল-কঙ্কন- কিঙ্কিণীরূপে পরিণত হলেও কনক প্রকৃতপক্ষে কনকই থাকে। সেরকম মহৎ, অহংকার ও আকাশ প্রভৃতি প্রকৃতপক্ষে নৃসিংহবিষ্ণু থেকে ভিন্ন নয়।

নৃত্যন্তী তব বীক্ষণাঙ্গনগতা কালস্বভাব আদিভিরর্ভা‌বান্

সত্ত্বরজস্তমোগুণময়ান উন্মীলয়ন্তী বহূন্ ৷

মামাক্রম্য পদা শিরস্যতিভরম্‌ সম্মরর্দ‌য়ন্ত্যাতুরম্‌

মায়া তে শরণম্‌ গতোঽস্মি নৃহরে ত্বমেব তাম্‌ বারয় ॥ ২৫ ॥

মায়া আপনার দৃষ্টিগতা হয়ে নৃত্য করতে করতে কলি-স্বভাব দ্বারা সত্ত্ব, রজতমোগুণময় বহু ভাব প্রকাশ করে আতুর  আমার মাথায় অতি নিষ্ঠুরভাবে আক্রমণ করে সংমর্দন করছে। হে নূহরি! আমি আপনার শরণাগত হলাম। আপনি আপনার মায়াকে নিবারণ করুন।

দণ্ডন্যাসমিষেণ বঞ্চিতজনম্‌ ভোগৈকচিন্তাতুরম্‌

সম্মুহ্যন্তমহরর্নিশম্‌ বিরচিতোদ্ যোগক্লমৈরাকুলম্ । 

আজ্ঞা লঙ্ঘিন  মজ্ঞমজ্ঞজনতা সম্মাননাসম্মদম্‌

দীনানাথদয়ানিধান পরমানন্দ প্রভো পাহি মাম্ ৷৷ ২৬ ॥

হে দীন-অনাথ-দয়ানিধান! হে পরমানন্দময় প্রভু! দণ্ড ও সন্ন্যাস গ্রহণ ছলে লোকবঞ্চনাকারী কেবল ভোগচিন্তায় পীড়িত নিরন্তর অতিশয় মোহপরায়ণ স্বকৃত কর্মক্লেশদ্বারা আকুল, আপনার আজ্ঞালঙ্ঘনকারী অজ্ঞ, অজ্ঞজনের কাছে সম্মানলাভ করে অতিশয় অহংকৃত আমাকে রক্ষা করুন।

অবগমম্‌ তব মে দিশ মাধব স্ফ ুরতি যত্ন সুখাসুখসঙ্গমঃ ।

শ্রবণ-বর্ণন-ভাবমথাপি বা ন হি ভবামি যথা বিধিকিঙ্করঃ ॥ ২৭ ॥

হে মাধব! আপনার স্বরূপের জ্ঞান এবং আপনার সম্বন্ধে শ্রবণ-কীর্তনে রতি আমাকে প্রদান করুন যাতে বিষয়জনিত সুখ-দুঃখের সঙ্গ না হয়, অথবা যাতে প্রেমশূন্য বিধির কিঙ্কর না হই।

দ্যুপতয়ো বিদুরন্তমনন্ত তে

ন চ ভবান্ ন গিরঃ শ্র ুতিমৌলয়ঃ । 

ত্বয়ি ফলন্তি যতো নম ইত্যতো

জয় জয়েতি ভজে তব তৎপাদম্ ৷৷ ২৮ ॥ 

হে অনন্ত! দেবতারা আপনার অন্ত জানেন না, আপনিও জানেন না। যেহেতু শ্র ুতিসার সবকথার তাৎপর্য আপনাতেই পর্যবসিত পরিণত, সমাপ্ত) হয়, সেই কারণে আপনাকে প্রণাম জানাই। বারবার আপনার জয় কীর্তন করে আপনার দুর্লভ চরণযুগলে ভজনা করি।

সর্বশ্র ুতিশিরোরত্ন-নীরাজিতপদাম্বুজম্ ৷

ভোগযোগপ্রদম্ বন্দে মাধবম্ কর্মিনম্ৰয়োঃ ৷৷ ২৯ ৷৷

কর্মী ও ভক্তের পক্ষে ভোগ ও ভক্তিযোগপ্রদ এবং নিখিল শ্র ুতি-শিরোরত্ন দ্বারা নীরাজিত যাঁর পাদপদ্ম সেই মাধবকে বন্দনা করি।

Shri Narasimha Kavacham Iskcon -শ্রীনৃসিংহ কবচম্, স্তব, নাম_5

** সঙ্কটনাশন লক্ষ্মীনৃসিংহ স্তোত্র (শ্রীশঙ্করাচার্য কর্তৃক)**

শ্রীমৎপয়োনিধিনিকেতনচক্রপাণে,

ভোগীন্দ্রভোগমণিরঞ্জিতপুণ্যমূর্তে ।

যোগীশ শাশ্বত শরণ্য ভবাব্ধিপোত,

লক্ষ্মীনৃসিংহ মম দেহি করাবলম্বম্ ॥ ১ ॥

হে ক্ষীরসাগরনিবাসি, হে চক্রপাণি, হে অনন্তদেবের ফণার মণিতে রঞ্জিত পুণ্যমূর্তি, হে যোগীশ্বর, হে সনাতন, হে সবার শরণ্য, ভবসমুদ্রপারের নৌকা, হে লক্ষ্মীনৃসিংহ, শ্রীহস্ত প্রসারিত করে আমাকে কৃপা করো।

ব্রহ্মেন্দ্ররুদ্র মরুদর্ককিরীটকোটি-

সঙ্ঘট্টি তাংঘ্রি কমলামলকান্তিকান্ত ৷

লক্ষ্মীলসৎকুচসরোরুহরাজহংস,

লক্ষ্মীনৃসিংহ মম দেহি করাবলম্বম্ ৷৷ ২ ৷৷

ব্রহ্মা ইন্দ্র মরুৎ আদিত্যদের কোটি কোটি মুকুট দিয়ে তোমার পাদপদ্মে প্রণতি নিবেদন করেন। হে অমলকান্তি বিশিষ্ট, তুমি কমলার সরোজের রাজহংসের মতো। হে লক্ষ্মী-নৃসিংহদেব, আমাকে নিজ কর-অবলম্বন প্রদান করো।

সংসারঘোরগহনে চরতো মুরারে,

আরোগভীকরমৃগপ্রসরাদিতত্স্য ।

আর্তস্য মৎসরনিদাঘনিপীড়িতত্স্য,

লক্ষ্মীনৃসিংহ মম দেহি করাবলম্বম্ ৷৷ ৩ ৷৷

হে মুরারি, আমি ঘোরগহন সংসার বনে বিচরণ করছি। ভীষণ হিংস্র রোগ-পশুরা আমাকে পীড়ন করছে, আমি মাৎসর্য-গ্রীষ্মের পীড়নে পীড়িত হয়ে আর্ত হয়েছি। হে শ্রীলক্ষ্মীনৃসিংহদেব, আমাকে হস্তাবলম্বন প্রদান করো।

সংসারকূপমতিঘোরমগাধমূলং,

সংপ্রাপ্য দুঃখশতসৰ্পসমাকুলস্য ৷

দীনস্য দেব কৃপণাপদমাগতস্য,

লক্ষ্মীনৃসিংহ মম দেহি করাবলম্বম্ ॥ ৪ ॥

হে দেব, আমি অতি ঘোর অতলস্পর্শ সংসারকূপে নিমগ্ন হয়ে শত শত দুঃখ-সৰ্পে সমাকুল হয়েছি। আমি দীন ও নিতান্ত ক্লেশকর অবস্থায় পতিত। হে লক্ষ্মীনৃসিংহ, দয়া করে হাত বাড়িয়ে আমাকে কৃপা করো।

সংসারসাগর বিশালকরালকাল-

নক্রগ্রহ গ্রসননিগ্রহবিগ্রহস্য ।

ব্যগ্রস্য রাগরসনোরর্মি‌নিপীড়িতস্য,

লক্ষ্মীনৃসিংহ মম দেহি করাবলম্বম্ ॥ ৫ ॥

হে লক্ষ্মীনৃসিংহদেব, সংসার সাগরে বিশাল করাল কাল-কুম্ভীর মুখ হাঁ করে আমাকে গ্রাস করছে। আমি নিয়ত নানা ক্লেশে অভিভূত হয়েছি। লোভের তরঙ্গে পতিত হয়ে নিপীড়িত হচ্ছি, দয়া করে আমাকে হস্তাবলম্বন প্রদান করো।

সংসারবৃক্ষমঘবীজমনন্ত কর্ম,

শাখাশতম্‌ করণপত্রমনঙ্গপুষ্পম্ ।

আরুহ্য দুঃখফলিতম্ পততো দয়ালো,

লক্ষ্মীনৃসিংহ মম দেহি করাবলম্বম্ ॥ ৬ ॥

পাপগুলি যার বীজ, অনন্ত কর্ম যার শত শত শাখা, ইন্দ্রিয়গুলি যার পাতা, মদন যার ফুল, দুঃখ যার ফল, সেই সংসার বৃক্ষে আরোহণ করে এখন আমি পতিত হয়েছি। হে দয়ালু শ্রীলক্ষ্মীনৃসিংহদেব, হস্তাবলম্বন প্রদান করে আমাকে রক্ষা করো।

সংসারসর্পঘনোক্ত্র ভয়োগ্রতীব্র – 

দংষ্ট্রাকরালবিষদগ্ধবিনষ্টমূর্তেঃ ।

নাগারিবাহন সুধাবদ্ধিনিবাস শৌরে,

লক্ষ্মীনৃসিংহ মম দেহি করাবলম্বম্ ॥ ৭ ॥

সংসার-সর্প মুখ ব্যাদান করে আমাকে দংশন করছে। তার করাল দাঁতের উগ্রতর বিষে আমার সর্বাঙ্গ দগ্ধ হওয়াতে আমি বিনষ্ট হচ্ছি। হে গরুড়বাহন; হে সুধাসমুদ্রবাসি, হে শৌরী, হে লক্ষ্মী-নৃসিংহদেব, হস্তাবলম্বন প্রদান করে আমাকে রক্ষা করো।

সংসারদাবদহনাতুরভীরোরুরু

জ্বালাবলীভিরতিদগ্ধতনরুহস্য।

তৎপাদপদ্মসরসীশরণাগতস্য,

লক্ষ্মীনৃসিংহ মম দেহি করাবলম্বম্ ॥ ৮ ॥

সংসার দাবানলের দহনে আমি অতিশয় আতুর হচ্ছি। আগুনের ভীষণ শিখায় আমার গায়ের রোম পুড়ে যাচ্ছে। আমি তোমার পাদপদ্ম-সরোবরে আশ্রয় নিলাম। হে লক্ষ্মীনৃসিংহ, আমাকে হস্তাবলম্বন প্রদান করো।

সংসারজালপতিতত্স্য জগন্নিবাস,

সর্বেন্দ্রিয়ার্থবড়িশার্থঝযোপমস্য ।

প্রোৎখণ্ডিতপ্রচুরতালুকমস্তকস্য,

লক্ষ্মীনৃসিংহ মম দেহি করাবলম্বম্ ॥ ৯ ॥

সংসার জালে আমি পতিত হয়েছি। বিষয় বড়শিতে আমার তালু ও মাথা খণ্ড খণ্ড করছে। হে জগন্নিবাস, হে লক্ষ্মীনৃসিংহদেব আমাকে হস্তাবলম্বন প্রদান করো।

সংসারভীকরকরীন্দ্রকরাভিঘাত-

নিষ্পিষ্টমর্মবপূষঃ সকলার্তিনাশ ।

প্রাণপ্রয়াণভবভীতিসমাকুলস্য,

লক্ষ্মীনৃসিংহ মম দেহি করাবলম্বম্ ॥ ১০ ॥

ভীষণ সংসার-হস্তী তার শুঁড়ের আঘাতে আমার দেহের মর্মস্থল নিষ্পেষণ করছে। মৃত্যুভয়ে আমি অতীব ব্যাকুল হয়েছি। সকল আর্তিনাশন শ্রীলক্ষ্মীনৃসিংহদেব, আমাকে হস্তাবলম্বন প্রদান করো।

অন্ধস্য মে হৃতবিবেকমহাধনস্য,

চৌরৈঃ প্রভো বলিভিরিন্দ্রিয়নামধেয়ৈঃ

মোহান্ধকূপকুহরে বিনিপাতিতত্স্য,

লক্ষ্মীনৃসিংহ মম দেহি করাবলম্বম্ ৷ ১১ ৷৷

আমি অজ্ঞান অন্ধ। প্রবল ইন্দ্রিয়রূপী চোরেরা আমার বিবেক মহাধন হরণ করে মহা অন্ধকূপের গভীর গর্তে আমাকে নিপতিত করেছে। হে প্রভু! হে লক্ষ্মীনৃসিংহদেব, আমাকে হস্তাবলম্বন প্রদান করো।

লক্ষ্মীপতে কমলনাভ সুরেশ বিষ্ণো,

বৈকুণ্ঠ কৃষ্ণ মধুসূদন পুষ্করাক্ষ ।

ব্রহ্মণ্য কেশব জনার্দন বাসুদেব,

দেবেশ দেহি কৃপণস্য করাবলম্বম্ ৷৷ ১২ ॥

হে লক্ষ্মীপতি, হে কমলনাভ, হে সুরেশ, হে বিষ্ণু, হে বৈকুণ্ঠনাথ, হে কৃষ্ণ, হে মধুসূদন, হে পদ্মলোচন, হে ব্রহ্মণ্যদেব, হে কেশব, হে জনার্দন, হে বাসুদেব, হে দেবেশ, এই দীনকে দয়া করে হস্তাবলম্বন প্রদান করো।

যন্মায়য়োর্জি‌তবপুঃ প্রচুরপ্রবাহ –

মগ্নার্থমাত্রনিবহোরুকরাবলম্বম্ ।

লক্ষ্মীনৃসিংহচরণাব্জমধুব্রতেন,

স্তোত্রম্‌ কৃতম্‌ সুখকরম্‌ ভুবি শঙ্করেণ ॥ ১৩ ৷৷

যাঁর মায়াতে আক্রান্ত হয়ে জড় পাঞ্চভৌতিক দেহ ধারণ করতে হয়, সেই লক্ষ্মীনৃসিংহদেবের পাদপদ্মের শরণাগত হয়ে শঙ্কর মহান অর্থ সম্বলিত সুখকর ‘করাবলম্বন’ নামক স্তব রচনা করেছেন।

** উৎকলখন্ডে শ্রী নৃসিংহ স্তোত্রম **

স্কন্দপুরাণের উৎকলখন্ডে উল্লেখ রয়েছে যে যখন অবন্তীরাজ শ্রীল ইন্দ্রদ‍্যুম্ন নীলমাধবের দর্শন আকাঙ্খায় বিদ‍্যাপতির পরামর্শ অনুসারে শবরদের রাজ‍্যের উদ্দেশ্য যাত্রা করেছিলেন তখন পথে মধ‍্যে দেবর্ষি নারদের নির্দেশে তিনি দিব‍্য নৃসিংহ বিগ্রহের অর্চন করে তাঁর স্তব করেন। মহারাজ ইন্দ্রুদ‍্যুম্নের এই স্তবটিই হলো স্কন্দপুরাণের শ্রীনৃসিংহ স্তোত্রম। শ্রীনৃসিংহ দেবের কৃপাতেই মহারাজ ইন্দ্রদ‍্যুম্ন সফল হয়েছিলেন জগন্নাথদেবের মন্দির নির্মাণ কার্যে। মন্দির প্রতিষ্ঠার পর শ্রীজগন্নাথদেব যজ্ঞনৃসিংহ রুপে ইন্দ্রদ‍্যুম্নকে দর্শন দান করেছিলেন। পুরীধামে শ্রীমন্দিরে আজ‌ও এই মন্ত্রে নৃসিংহদেবের স্তুতি করা হয়।

।। শ্রীইন্দ্রদ‍্যুম্ন মহারাজ কৃত শ্রীনৃসিংহ স্তোত্রম।।

শ্রীইন্দ্রদ‍্যুম্ন উবাচ

একানেকস্থুলসুক্ষ্মাত্মমুর্তে
ব‍্যোমারুঢ় ব‍্যোমরুপৈকরুপ।
ব‍্যোমাকার ব‍্যোমভৃদ্ব‍্যোমসংস্থ
ব‍্যোমারুঢ় ব‍্যোমকেশাব্জযোনে।।

দুঃখাম্ভোধেস্ত্রাহি মাং নারসিংহ!
প্রাদুর্ভূতানেককোট‍্যর্কধামন।
নিত‍্যানন্দো দুরসংস্থো ন দূরো
নাসন্নো বা বোধ‍্যবোধাত্মভাবঃ।।

জ্ঞেয়াজ্ঞেয়ো নাসি গম‍্যোপগম‍্যো
মানাতীতো মানমেয়োহনুমান‍্যঃ।
কৃৎস্নস‍্যাদিঃ কৃস্নকর্তানুমন্তা
ধ্বান্তধ্বংসী বিশ্বসাক্ষ্মিন্নমস্তে
দুঃখধ্বংসস‍্যৈকহেতুং নমামি
হেতুং ছেত্তুং সংশয়ানগ্রজাতান।
জ‍্যোতীরুপ-জ্ঞানরুপ-প্রকাশ-স্তোম-ব‍্যোমাকার নির্বাণহেতো।।

তৎপাদাব্জে ভক্তিমেকাং সদা মে
দেহি স্বামিন্!যাচমানায় তূর্ণম।
শ্রৌতৈঃ স্মাতৈর্নিত‍্যযুক্তশ্চযে ণে
হীনাস্তিষ্ঠন্ত্বত্র মগ্না ভবাব্ধৌ।।

অনন্তপাদং বহুহস্তনেত্রম-অনন্তবক্ত্রং ককুভৌঘশস্ত্রম।
দিবানিশানাথ সুকুণ্ডলাঢ‍্যং
নক্ষতমালখকৃত চারুহারম।।

ত্বামদ্ভুতং দিব‍্যনৃসিংহমূর্তিং
ভক্তেষ্টমূতিং শরণং প্রপদ‍্যে।
তৎপাদপদ্মং হি পিতামহস‍্য
কিরীটরত্মৈর্বিকচত্বমেতি।।

ত্বদীয়পাদাব্জযুগান্তভূমৌ
লুঠাচ্ছিরো যস‍্য হি পাঞ্চভৌতম।
ত্বদ্দিব‍্যপাদং শিরসা বহন্তি
সুরেন্দ্রনাথঃ খলু তং নমন্তি।।

তং দিব‍্যসিংহং হতপাপসংঘং
পাদাশ্রিতানাং দুরিতেভসিংহম।
পাদাব্জসংঘট্টবিঘট্টমান-ব্রহ্মান্ডভান্ডংপ্রণমামি চন্ডম্।।

সটাচ্ছটাকম্পনশীর্ষমাণ-
মদৌঘ-বিদ্রাবিতদৈত‍্যসংঘম।
চন্ডাট্টহাহন্তরিত‍্যান‍্যশব্দং
ত্রিলোকগর্ভং নৃহরিং নমামি।।

নমস্তে নমস্তে নমস্তেহদ‍্য বিষ্ণো
পরিত্রাহি দেবেশ দীনানুকম্পিন!
ভবন্তং সমাসাদ‍্য ভূয়স্তু দেব!
মুরারে ন সংসারকরাগৃহেহস্তু ।।

হয়মেধসহস্ত্রান্তে যথা ত্বং চর্মচক্ষুষা।
দিব‍্যরুপং ন পশ‍্যামি যথানুক্রোশয় প্রভো।।
যথা চেজ‍্যা-সহস্ত্রং মে নির্বিঘ্নন্তু সমাপ‍্যতে।
যজ্ঞেশ ত্বৎপ্রসাদান্মে তথা সান্নিধ্যমস্তু তে।।

কোটয়ঃ পাপরাশীনাং ক্ষয়ং যান্তি তথা প্রভো।
ধর্মার্থকামা হস্তেস্থা তৈষাং স্তোত্রং স্তবন্তি যে।।
মোক্ষস‍্য ভাজনং বিষ্ণো তে নরা যে তবাশ্রয়াঃ।
স্তত্বেত্থং দিব‍্য সিংহং তৎ ভূপতিহৃষ্টমানসঃ।
দন্ডপাত প্রণামেণ জগাম ধরণীৎমুহঃ।।

ভাবানুবাদ -হে দেব! আপনি এক হয়েও বহুরুপী, স্থুলরুপী হয়েও অনুবৎ, আকাশ হ‌ইতেও অতীত আবার আপনিই একমাত্র আকাশ রূপী, আপনি আকাশের মতো সর্বব্যাপী, আকাশে আপনি নিত‍্য অবস্থান করেন -আকাশ আপনার থেকেই উৎপন্ন। শিব, ব্রহ্মাদি দেবতা আপনার থেকেই প্রকাশিত হয়। দিব‍্যসিংহরুপিন্ আপনি বহুকোটি সুর্যতেজ পুঞ্জ স্বরুপ, আপনি সর্বদ। সন্নিহিত হলেও (অভক্তদের পক্ষে দূরস্থিত) ফলতঃ আপনি (সাধনার) দুরবর্তী নন এবং অল্প আয়াসে সন্নিহিত নন। আপনি জ্ঞেয় জ্ঞান স্বরুপ, দয়া করে আমাকে দুঃখসাগর থেকে পরিত্রাণ করুন। আপনি জ্ঞেয়বস্তু দ্বারা জ্ঞেয় এবং জ্ঞানগম‍্য হলেও অগম‍্য। আপনি মায়াতীত হলেও মায়ামুগ্ধ গনের অনুমানে অনুমেয়।আপনি সকলের আদি, সকলের সৃষ্টিকর্তা, সকলের অনুমোদন কর্তা, রক্ষক ও সংহর্তা। হে বিশ্বসাক্ষিণ আপনাকে প্রণাম।

আপনি দুঃখধ্বংসের একমাত্র কারণ অথচ আপনার কোনো কারণ নেই। আপনি সংসারবন্ধন ও সংশয়সমূহের ছেদক, আপনি সকলের অগ্রজাত, আপনি জ‍্যোতীরুপ, জ্ঞানরুপ, প্রকাশসমূহরুপ,আপনি ব‍্যূহাকার নির্মাণের সেতু। আপনাকে নমস্কার। আপনার পাদপদ্মে ভক্তি, ধর্ম, অর্থ ,কাম, মোক্ষের মূলীভূত, হে স্বামী আপনি সেই আমায় পরমা ভক্তি প্রদান করুন। যেসকল ব‍্যক্তি আপনার প্রতি ভক্তিশূন‍্য হয়ে শ্রৌত স্মার্ত কর্মকাণ্ড করেন, তাদের সেই কর্ম যন্ত্রণাস্বরুপ, এতে তারা সংসারসাগরে বদ্ধ হয়ে দীনভাবে অবস্থান করেন। হে দেব! আপনার অনন্তপদ, অনন্ত হস্ত, অসংখ্য নেত্র, অসংখ্য কর্ণ, দিকসমুহ আপনার বস্ত্র স্বরুপ, চন্দ্র ও সুর্য আপনার দুই কর্ণের কুন্ডল, নক্ষত্রমালা আপনার মনোহর কন্ঠহার,আপনার এই অদ্ভুত দিব‍্য নৃসিংহ মুর্তি ভক্তদের মনোবাসনা পুর্ণ করে আমি আপনার ঐ মুর্তির শরণাপন্ন।আপনার যে পাদপদ্ম ব্রহ্মার স্বর্ণমুকুটের রত্নে সুশোভিত, যে পাদপদ্মের প্রান্তে নিখিল পঞ্চভৌতিক জীবের মস্তক বিলুন্ঠিত, সকল দেবীগণ যেই পাদপদ্ম মস্তকে বহন করেন আমি সেই পাদপদ্মে প্রণাম করি। আপনার এই দিব‍্যনৃসিংহমূর্তি পাপীদের নিকট প্রচন্ড, পাপসমুহের নিয়ামক, পদাশ্রিত ভক্তদের নিকট দয়ার সাগর। আপনার এই মুর্তির পাদপদ্মের সংঘটনে্রহ্মান্ডভান্ড ভগ্ন হয়, আপনার এই মুর্তিকে প্রণাম করি।

জটাসমূহের কম্পন দ্বারা মেঘসমুহের অপসারণচ্ছলে যিনি পাপসমুহে বিতাড়িত করেন, যাঁর প্রচন্ড অট্টহাসির শব্দের কাছে মেঘের গর্জন পরাজিত,সমগ্র ত্রিলোক যাঁর উদরে অবস্থান করছে, আমি সেই নরহরিকে প্রণাম করি। হে বিষ্ণো! আপনাকে আমি বারবার প্রণাম করি। হে দীনদয়াল আমি অনাথ!আমাকে রক্ষা করুন। হে মুরারে! আমি যেন আপনার সাক্ষাৎকার লাভ করে সংসার কারাগারে আর আবদ্ধ না হ‌ই।হে প্রভো সহস্ত্র অশ্বমেধযজ্ঞের পরে আপনাকে আমি চক্ষু দ্বারা যাতে দর্শন করতে পারি অনুগ্রহপূর্বক তাই করুন। হে বিষ্ণো! যাঁরা আপনার আশ্রিত এবং আপনার এই অদ্ভুত মুর্তির স্তব করে তারা ধর্ম, অর্থ, কামকে তুচ্ছ মনে করে জাগতিক বন্ধন থেকে মুক্তি লাভের অধিকারী হয়। মহারাজ ইন্দ্রুদ‍্যুম্ন এইভাবে আনন্দিত হৃদয়ে সেই দিব‍্য নৃসিংহ মুর্তির স্তব করে ভূতলে বারবার দন্ডবৎ প্রণাম নিবেদন করলেন।

মহর্ষি জৈমিনী এই স্তোত্রের মাহাত্ম্যে বলেছেন –

স্তোত্রানাণেন যে দিব‍্য সিংহরুপং স্তবন্তি বৈ।
সর্বকামপ্রদে দেবস্তস‍্য মুক্তিং প্রযচ্ছতি।।

অর্থাৎ যে ব‍্যাক্তি এই স্তোত্র পাঠ করেন তার সকল মনোবাসনা পুর্ণ হয় এবং সমস্ত জাগতিক বন্ধন থেকে তিনি মুক্তি লাভ করে অবশ‍্য‌ই শ্রীনৃসিংহের কৃপা লাভ করেন।

হরে কৃষ্ণ হরে কৃষ্ণ কৃষ্ণ কৃষ্ণ হরে হরে।

হরে রাম হরে রাম রাম রাম হরে হরে।।

Shri Narasimha Kavacham Iskcon -শ্রীনৃসিংহ কবচম্, স্তব, নাম_4

** শ্রী নৃসিংহদেবের ১০৮ নাম **

(108 Names of Lord Narasimha)

১। ওঁ নারসিংহায় নমঃ ৩৭। ওঁ গুণভদ্ৰায় নমঃ৭৩। ওঁ মহানন্দায় নমঃ
২। ওঁ মহাসিংহায় নমঃ৩৮। ওঁ মহাভদ্ৰায় নমঃ৭৪। ওঁ পরন্তপায় নমঃ
৩। ওঁ দিব্যসিংহায় নমঃ৩৯। ওঁ বলভদ্ৰায় নমঃ৭৫। ওঁ সর্বমন্ত্রৈকরূপায় নমঃ 
৪। ওঁ মহাবলায় নমঃ ৪০। ওঁ সুভদ্ৰকায় নমঃ৭৬। ওঁ সর্বয়ন্ত্রবিদারণায় নমঃ 
৫। ওঁ উগ্ৰসিংহায় নমঃ৪১। ওঁ করালায় নমঃ৭৭। ওঁ সর্বতন্ত্র আত্মকায় নমঃ
৬। ওঁ মহাদেবায় নমঃ ৪২। ওঁ বিকরালায় নমঃ৭৮। ওঁ অব্যক্তায় নমঃ
৭। ওঁ স্তম্ভজায় নমঃ৪৩। ওঁ বিকর্ত্রে নমঃ ৭৯। ওঁ সুব্যক্তায় নমঃ
৮। ওঁ উগ্রলোচনায় নমঃ ৪৪। ওঁ সর্বকর্তৃকায় নমঃ  ৮০। ওঁ ভক্তবৎসলায় নমঃ 
৯। ওঁ রৌদ্রায় নমঃ ৪৫। ওঁ শিংশুমারায় নমঃ৮১। ওঁ বৈশাখশুক্ল ভূতোত্থায় নমঃ
১০। ওঁ সর্বদ্ভুতায় নমঃ ৪৬। ওঁ ত্রিলোকাত্মায় নমঃ৮২। ওঁ শরণাগত বৎসলায় নমঃ
১১। ওঁ শ্রীমতে নমঃ ৪৭। ওঁ ঈশায় নমঃ৮৩। ও উদারকীর্তয়ে নমঃ
১২। ওঁ যোগানন্দায় নমঃ৪৮। ওঁ সর্বেশ্বরায় নমঃ৮৪। ওঁ  পূণ্যাত্মনে নমঃ
১৩। ওঁ ত্রিবিক্রমায় নমঃ ৪৯। ওঁ বিভবে নমঃ৮৫। ওঁ মহাত্মনে  নমঃ
১৪। ওঁ হরয়ে নমঃ ৫০। ওঁ ভৈরবাডম্বরায় নমঃ৮৬। ওঁ চণ্ডবিক্রমায় নমঃ
১৫। ওঁ কোলাহলায় নমঃ৫১। ওঁ দিব্যায় নমঃ৮৭। ওঁ বেদত্রয়ায়-প্রপূজ্যায় নমঃ
১৬। ওঁ চক্রিণে নমঃ৫২। ওঁ অচ্যুতায় নমঃ৮৮। ওঁ ভগবতে নমঃ
১৭। ওঁ বিজয়িনে নমঃ৫৩। ওঁ কবিমাধবায় নমঃ৮৯। ওঁ পরমেশ্বরায় নমঃ
১৮। ওঁ জয়বর্ধনায় নমঃ৫৪। ওঁ অধোক্ষজায় নমঃ৯০। ওঁ শ্রীবৎসাঙ্কায় নমঃ
১৯। ওঁ পঞ্চাননায় নমঃ৫৫। ওঁ অক্ষরায় নমঃ৯১। ওঁ শ্রীনিবাসায় নমঃ
২০। ওঁ পরমব্রহ্মণে নমঃ৫৬। ওঁ সৰ্বায় নমঃ৯২। ওঁ জগদ্ব্যাপিনে নমঃ
২১। ওঁ অঘোরায় নমঃ৫৭। ওঁ বনমালিনে নমঃ৯৩। ওঁ জগন্মায়ায় নমঃ
২২। ওঁ ঘোরবিক্রমায় নমঃ ৫৮। ওঁ বরপ্রদায় নমঃ৯৪। ওঁ জগত্পালায় নমঃ
২৩। ওঁ জ্বলন্মু‌খায় নমঃ৫৯। ওঁ বিশ্বম্ভরায় নমঃ৯৫। ওঁ জগন্নাথায় নমঃ
২৪। ওঁ জ্বালামালিনে নমঃ৬০। ওঁ অদ্ভুতায় নমঃ ৯৬। ওঁ মহাকায়ায় নমঃ
২৫। ওঁ মহাজ্বালায় নমঃ ৬১। ওঁ ভব্যায় নমঃ৯৭। ওঁ দ্বিরূপভৃতে নমঃ
২৬। ওঁ মহাপ্রভবে নমঃ৬২। ওঁ শ্রীবিষ্ণুবে নমঃ৯৮। ওঁ পরমাত্মনে নমঃ
২৭। ওঁ নীটিলাক্ষায় নমঃ ৬৩। ওঁ পুরুষোত্তমায় নমঃ৯৯। ওঁ পরম-জ্যোতিষে নমঃ 
২৮। ওঁ সহস্রাক্ষায় নমঃ ৬৪। ওঁ অনঘাস্ত্রায় নমঃ১০০। ওঁ নির্গুণায় নমঃ
২৯। ওঁ দুর্নিরীক্ষায় নমঃ৬৫। ওঁ নখাস্ত্রায় নমঃ১০১। ওঁ নৃকেসরিণে নমঃ
৩০। ওঁ প্রতাপনায় নমঃ৬৬। ওঁ সূর্যজ্যোতিষে নমঃ১০২। ওঁ পরতত্ত্বায় নমঃ
৩১। ওঁ মহাদ্রংরাষ্ট্রায়ুধায় নমঃ৬৭। ওঁ সুরেশ্বরায় নমঃ ১০৩। ওঁ পরধাম্নে  নমঃ
৩২। ওঁ প্ৰাজ্ঞায় নমঃ৬৮। ওঁ সহস্রবাহবে নমঃ১০৪। ওঁ সচ্চিদানন্দ বিগ্রহায় নমঃ
৩৩। ওঁ চণ্ডকোপিনে নমঃ ৬৯। ওঁ সর্বজ্ঞায় নমঃ১০৫। ওঁ লক্ষ্মীনৃসিংহায় নমঃ
৩৪। ওঁ সদাশিবায় নমঃ৭০। ওঁ সর্বসিদ্ধিপ্রদায়কায় নমঃ১০৬। ওঁ সর্বাত্মানে নমঃ
৩৫। ওঁ হিরণ্যকশিপুধ্বংসিনে নমঃ৭১। ওঁ বজ্রদংষ্ট্রায় নমঃ১০৭। ওঁ ধীরায় নমঃ
৩৬। ওঁ দৈত্যদানবভঞ্জনায় নমঃ৭২। ওঁ বজ্ৰনখায় নমঃ১০৮। ওঁ প্রহ্লাদপালকায় নমঃ

** শ্রী নৃসিংহদেবের অপূর্ব লীলা **

একবার প্রতিদিনের মতো সেদিনও নৃসিংহদেবের পূজা চলছিল। পঙ্কজাঙ্ঘ্রী প্রভু লক্ষ্য করলেন যে, নৃসিংহদেবের গলার মালা থেকে একটি ফুল খসে পড়ল। এই দেখে তিনি দর্শনার্থীদের জিজ্ঞাসা করলেন, “আপনারা কেউ কি নৃসিংহদেবের নিকট বিশেষ কোনও প্রার্থনা করছেন?”

সামনের দিকের দর্শনার্থীরা কেউ কিছু বললেন না, কিন্তু পিছনের দিক থেকে এক মহিলা চোখের জল নিয়ে এগিয়ে এলেন। তিনি বললেন, “আমার একমাত্র মেয়ের চার-পাঁচ বছর হল বিবাহ হয়েছে কিন্তু তার কোনও সন্তানাদি হয়নি। তার শ্বশুরবাড়ির লোকেরা এটিকে অশুভ বলে মনে করছেন।”

তাই আমি নৃসিংহদেবের কাছে প্রার্থনা করছিলাম যে, তিনি যদি তাকে এই অসহায় অবস্থায় সাহায্য করেন। তারপর পঙ্কজাঙ্ঘ্রী প্রভু বললেন, “আপনার প্রার্থনা নৃসিংহদেব গ্রহণ করেছেন।” তার প্রমাণ হচ্ছে, তাঁর গলার মালা থেকে এই ফুলটি খসে পড়েছে।

পঙ্কজাঙ্ঘ্রী প্রভু মাতাজীকে বললেন, “আপনি এটি নিয়ে যান, ভাল করে রাখবেন। আপনি এই ফুল ধুয়ে সেই জল আপনার মেয়েকে পান করাবেন।”

একবছর পর সেই মহিলা তাঁর মেয়ে-জামাই এবং নবজাত শিশু-পুত্রকে নিয়ে হাসিমুখে নৃসিংহদেবের সামনে উপস্থিত হলেন।

তিনি পঙ্কজাঙ্ঘ্রী প্রভুকে তাঁর আগের বছরের প্রার্থনা স্মরণ করিয়ে দিলেন এবং বললেন, “শ্রীনৃসিংহদেবের কৃপায় আমার মেয়ের এই পুত্র-সন্তান লাভ হয়েছে। আমরা তার নাম দিয়েছি প্রহ্লাদ।”

এই বলে তাঁরা সকলে মিলে পুনরায় শ্রীশ্রীনৃসিংহদেবের নিকট খুব ভালভাবে পূজা দিলেন।

** নব গ্রহের প্রকোপ থেকে  কিভাবে রক্ষা পাবেন?  **

নব গ্রহের প্রকোপ থেকে রক্ষা পেতে শ্রীশ্রী ভগবান নৃসিংহদেবের বিশেষ নয়টি নাম প্রতিদিন জপ করুন।

(১) জ্বালা নৃসিংহ দেব

ভগবান এই রূপ ধারণ করা মাত্রই তার কেশরের স্পর্শে বহু অসুর ধ্বংস হয়েছিল এবং ভগবান নৃসিংহদেবের চোখ দুটি ছিল স্বর্ণের মতো উজ্জ্বল। যেহেতু, সবকিছু জ্বালিয়ে দিয়েছিলেন তাই ভগবানের এই বিগ্রহের নাম শ্রী জ্বালা নৃসিংহদেব। ভগবানের এই বিগ্রহের নাম স্মরণ করার ফলে মঙ্গল গ্রহের দোষ নষ্ট হয়ে যায়

(২) আহোবিলা নৃসিংহদেব

“আহো” মানে আশ্চর্য এবং “বিলা” মানে গুহা। একবার শ্রী গরুড় দেব ও শ্রী প্রহ্লাদ মহারাজ একটি গুহার মধ্যে তপস্যা করছিলেন। ভগবান নৃসিংহদেব সেই গুহার মধ্যে সেই রূপে প্রকট হলেন যে রূপে হিরণ্যকশিপু কে বধ করেছিলেন। তাই ভগবানের এই বিগ্রহকে শ্রী শ্রী আহোবিলা নৃসিংহদেব বলা হয়। শ্রীশ্রী আহো বিলা নৃসিংহ দেবের নাম স্মরণ করলে বৃহস্পতি গ্রহের দোষ নষ্ট হয়ে যায়

(৩) মালোলা নৃসিংহদেব

মা মানে শ্রী শ্রী লক্ষ্মী দেবী এবং লোলা মানে প্রিয়া। শ্রী প্রহলাদ মহারাজ কে কৃপা করার পর শ্রী শ্রী নৃসিংহ দেব মাতা শ্রী লক্ষী দেবী কে তার কোলে বসিয়েছিলেন। ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশের ভাষায় ভগবান নৃসিংহদেবের এই রূপ কে শ্রী শ্রী মালোলা নৃসিংহদেব বলা হয়। শ্রীশ্রী মালোলা নৃসিংহদেবের নাম স্মরণ করার ফলে শুক্র গ্রহের দোষ নষ্ট হয়ে যায়

(৪) বরাহ নৃসিংহদেব

এই রূপধারণ করে দাঁতের উপর ধরনি দেবীকে তিনি ধারণ করে আছেন। শ্রী বরাহ নৃসিংহদেবের নাম স্বরণ করার ফলে রাহু গ্রহের দোষ নষ্ট হয়ে যায়

(৫) করঞ্জ নৃসিংহদেব

করঞ্জ বৃক্ষের তলায় আবির্ভূত হয়েছিলেন বলে তার এই রূপের নাম করঞ্জ নৃসিংহদেব। ভক্তশ্রেষ্ঠ হনুমানের তপস্যায় এই রূপে নৃসিংহদেব আবির্ভূত হয়েছিলেন। তাই কেউ কেউ শ্রী রাঘব নৃসিংহদেব বলেও স্বরণ করেন। শ্রী করঞ্জ নৃসিংহদেবের নাম উচ্চারণের ফলে চন্দ্র গ্রহের দোষ নষ্ট হয়ে যায়

(৬) ভার্গব নৃসিংহদেব

ভগবানের অংশ অবতার পরশুরাম ভগবান নৃসিংহদেবের তপস্যা করেছিলেন। ভগবান নৃসিংহদেব সন্তুষ্ট হয়ে যে রুপে দর্শন দিয়েছিলেন সেই রূপের নাম শ্রী ভার্গব নৃসিংহদেব। এই ভার্গব নৃসিংহদেবের নাম স্বরণ করার ফলে রবি গ্রহের দোষ নষ্ট হয়ে যায়

(৭) যোগানন্দ নৃসিংহদেব

ভগবান নৃসিংহদেব এই রূপে প্রকট হয়ে ভক্ত প্রহলাদ মহারাজকে রাজনীতি ও যোগ সম্মন্ধে শিক্ষা প্রদান করেছিলেন। এই বিগ্রহ খুবই শান্ত ও হাস্য মুখমণ্ডল এবং খুবই কৃপালু। যোগানন্দ নৃসিংহদেবের নাম স্বরণ করার ফলে শনি গ্রহের দোষ নষ্ট হয়ে যায়

(৮) ছত্রবটা নৃসিংহদেব

নৃসিংহদেব একবার পিপিল বৃক্ষের নিচে বসেছিলেন এবং সেখান থেকে “আহা” ও “উহ” নামের দুই গন্ধর্ব গান গাইতে গাইতে যাচ্ছিলেন। তখন ভগবান নৃসিংহদেব তাদের ডেকে বললেন তারা যেনো প্রতিদিন গান শুনিয়ে যায়। তাই এই বিগ্রহের উপরের দুই হাতে শঙ্খ, চক্র ও নিচের ডান হাতে অভয় দান করেছিলেন এবং বাম হাত দিয়ে তিনি গানের তাল দিয়েছিলেন। এই বিগ্রহের নাম স্মরণ করার ফলে কেতু গ্রহের দোষ নষ্ট হয়ে যায়

(৯) পবন নৃসিংহদেব

নৃসিংহদেবের এই রূপকে স্থানীয় লোকেরা জামাই বলেও সম্মোধন করে থাকেন। কারন একবার প্রসন্ন হয়ে লক্ষিদেবী দুর্দশাগ্রস্ত চঞ্চু কুলে আবির্ভূত হয়েছিলেন। তখন ভগবান পাবন নৃসিংহদেব রুপে আবির্ভূত হয়ে মাতা লক্ষীদেবীকে বিবাহ করে চঞ্চু কুলের সকল দুঃখ, কষ্ট ও পাপ নষ্ট করে সেখানেই অবস্থান করেন। সকল প্রকার পাপ নষ্ট করে দেন বলে এই বিগ্রহের নাম শ্রী পাবন নৃসিংহদেব। শ্রী পাবন নৃসিংহদেবের নাম স্বরণ করার ফলে বুধ গ্রহের দোষ নষ্ট হয়ে যায়

*এই হচ্ছে ভগবান নৃসিংহদেবের নয়টি বিশেষ নাম। যা স্মরণ করার ফলে নব গ্রহের দোষ নষ্ট হয়ে যায়।*

ভক্তিভরে ভগবান নৃসিংহদেবের নাম স্বরণ এবং স্তব করলে ভক্তি পথের সমস্ত বাধা বিঘ্নকে আমরা অতিক্রম করতে পারি।

🙏পতিত পাবন ভগবান নৃসিংহদেব কি জয় 🙏


Like it? Share with your friends!

189
158 shares, 189 points
error: Content is protected !!

Adblock Detected!

Our website is made possible by displaying online advertisements to our visitors. Please consider supporting us by whitelisting our website.

Join Our Community List

Community grow with You. * VERIFY & CONFIRM YOUR EMAIL *

Thanks for your interest joining to Bangla Kobita Club community.

Fill the Correct Information.

Thanks for your interest joining to Bangla Kobita Club community.

Something went wrong.

Subscribe to Join Our Community List

Community grow with You. [Verify and Confirm your Email]

Thanks for your interest joining to Bangla Kobita Club community.

Something went wrong.

Subscribe to Join Our Community List

Community grow with You. [Verify and Confirm your Email]