তুলসী মাহাত্ম্য (Tulasi Mahatyam)✸তুলসী পূজা ও বিধি-নিষেধ_1

তুলসী মাহাত্ম্য (Tulasi Mahatyam)✸তুলসী পূজা ও বিধি-নিষেধ

1 min


211
180 shares, 211 points

এই মনুষ্য জীবনে, এই ভক্তি জীবনে তুলসী মাহাত্ম্য (Tulasi Mahatyam) কি অবশ্যই প্রত্যেকের জানা দরকার। সেই সঙ্গে জানা দরকার তুলসী পূজা পদ্ধতি, তুলসী প্রনাম মন্ত্র, তুলসী প্রদক্ষিণ মন্ত্র, তুলসী জলদান মন্ত্র, তুলসী চয়ন মন্ত্র, তুলসী ক্ষমা প্রার্থনা মন্ত্র তুলসী স্তব এবং বিধি-নিষেধ কি  ইত্যাদি।  

❝ বৃন্দায়ৈ তুলসী দেব্যৈ প্রিয়ায়ৈ কেশবস্য চ।
বিষ্ণুভক্তি প্রদে দেবী সত্যবত্যৈ নমো নমঃ॥ ❞

শ্রীমতী তুলসীদেবী হলেন শ্রীকৃষ্ণ ভক্তিদায়িনী, শ্রীকৃষ্ণপ্রেম প্রদায়িনী, সর্বদুঃখহারিণী এবং শ্রীকৃষ্ণের সাথে মায়াবদ্ধ জীবের মিলনকারিণী। গোলকবাসিনী শ্রীমতী তুলসীদেবী শ্রীকৃষ্ণের প্রাণপ্রেয়সী। শ্রীমতী তুলসীদেবী হলেন পুষ্পসারা (সমস্ত ফুলের মধ্যে শ্রেষ্ঠা), পূজ্যা ও মনোহরা। তিনি প্রজ্জ্বলিত অগ্নি শিখার মত সমস্ত পাপ দহনকারিনী। সমস্ত দেবীগনের মধ্যে যিনি পবিত্র রূপা এবং যাঁর তুলনা নেই, তিনি ‘তুলসী’ নামে কীর্তিতা হন। তিনি সকলের প্রার্থনীয়া, শিরোধার্যা, বিশ্বপাবনী নামে প্রসিদ্ধা, এবং মুক্তি ও হরি ভক্তিদায়িনী।

বৃহৎ ধর্ম পুরাণে বলা হয়েছে – শ্রীমতী তুলসী দেবী দ্বিভুজা, শ্যামাঙ্গী, চারুবদনী, শ্বেতবসনা, শঙ্খ-পদ্ম হস্তযুক্তা এবং নানা প্রকার অলঙ্কারে বিভূষিতা। তিনি ভক্তের সর্বার্থ সিদ্ধি প্রদান করে থাকেন।

বৃক্ষরূপে অবস্থিতা তুলসীদেবী বিভিন্ন বর্ণের হয়ে থাকেন। যেমন- হরিৎ বর্ণ, কৃষ্ণ বর্ণ, সবুজ বর্ণের এবং কখনো মিশ্রিত বর্ণের হয়েও থাকে। বৃক্ষরূপে অবস্থিতা তুলসীদেবীর প্রতি পাতায় দ্বাদশাক্ষর মন্ত্র বিরাজমান। আবার প্রতি বর্ণে বা অক্ষরে ভগবান বিষ্ণুর সহস্র নাম বিরাজমান। এই পৃথিবীতে তুলসীদেবী কখনো শঙ্খচূড়ের পত্নীরূপে, কখনো জলন্ধরের পত্নীরূপে, কখনো ধর্মদেবের পত্নীরূপে, কখনো বা ভগবান বিষ্ণুর নয়নাশ্রু থেকে আবির্ভূতা হয়েছেন। তিনি যখন যেভাবেই আবির্ভূতা হোন না কেন, সর্বাবস্থায় তিনি শ্রীকৃষ্ণপরায়ণা ছিলেন। এই জগতে তাঁর কোন তুলনা নেই। তাই ব্রহ্মবৈবর্ত্ত পুরাণে বলা হয়েছে ━

❝ পুষ্পেষু তুলনাপ্যস্যা নাসীদ্‌ দেবীষু বা মুনে।
পবিত্র রূপা সর্বসু তুলসী সা চ কীৰ্ত্তিতা॥ ❞

অনুবাদ: হে মুনে! সমস্ত পুষ্পসমূহের মধ্যে এবং সমস্ত দেবীগণের মধ্যে যাঁর কোন তুলনা নেই, সেই কারণে সমস্ত পুষ্প ও দেবীগণের মধ্যে এই দেবী তুলসী পবিত্ররূপা বলে অভিহিত করা হয়েছে।

ভগবান শ্রীকৃষ্ণ এই তুলসী ব্যতীত কোন ভোগ্যবস্তুই গ্রহণ করেন না। তাই শাস্ত্রে বলা হয়েছে ━ছাপান্ন ভোগ ছত্রিশ ব্যঞ্জন, বিনা তুলসী প্ৰভু একোনাহি মানি এইভাবে দেখা যায়, শ্রীমতী তুলসী দেবী ভগবান শ্রীকৃষ্ণের প্রাণপ্রিয়া অন্তরঙ্গা শক্তি।

বৈদিক শাস্ত্ৰসমূহে ভক্তিজননীর বিভিন্ন লীলা মাহাত্ম্য কীর্তন করা হয়েছে এবং আমাদের পূবর্তন আচার্যরাও বভিন্ন সময়ে ভক্তিদেবীর নিকট শরণাগতি প্রার্থনা করে মহিমা কীর্তন করেছিলেন। নিম্নে কয়েকটি লীলা মাহাত্ম্য আলোচনা করা হলো ━

─•━━⊱♦️✥♦️⊰•⊰❁*❀❁❁❀*❁⊱⊱♦️✥♦️⊰•━━•─

✤✸ তুলসীবন পূজা মাহাত্ম্য ✸✤

একাদশী মাহাত্ম্যে ও শ্রীশ্রী হরিভক্তিবিলাসে তুলসী বন পূজা মাহাত্ম্য সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে। হরিভক্তিবিলাস ধৃত অগস্ত্য সংহিতায় বলা হয়েছে ━ তুলসী রোপণ, সেবন, দর্শন ও স্পর্শ দ্বারা পবিত্রতা লাভ হয় এবং সযত্নে উপাসনা করলে যাবতীয় অভীষ্ট সিদ্ধ হয়। প্রতিদিন তুলসী প্রদক্ষিণ করে প্রণাম করলে সকল পাপ ধ্বংস হয়। যে গৃহে প্রতিদিন তুলসী পূজা হয় সেখানে যাবতীয় মঙ্গল পরিবর্ধিত হয় । কলিকালে শ্রীহরি তীর্থক্ষেত্র ও নিখিল ভুধর ত্যাগ করে একমাত্র তুলসী বনেই নিত্য অবস্থান করেন

যিনি যথাবিধি তুলসীবন রোপণ করেন, তিনি পরম পদ লাভ করেন। বিশেষতঃ শ্রবণা নক্ষত্র যোগে তুলসী রোপণ করা কর্তব্য, শ্রবণায় তুলসী রোপণ করলে রোপণকারীর সহস্র অপরাধ ক্ষমা করেন। যে সমস্ত দেব মন্দির বা পুণ্যভূমিতে তুলসী বৃক্ষ রোপণ করা হয় সে সমস্ত স্থান শ্রীহরির তীর্থস্বরূপ। চৈত্র সংক্রান্তি হতে বৈশাখ মাসের সংক্রান্তি পর্যন্ত তুলসীতে জলধারা দান ও ছায়া দান করলে পরম গতি লাভ হয়।

একাদশী মাহাত্ম্যে বলা হয়েছে —-

১) যিনি যথাবিধি তুলসী বন রোপণ করেন, তার বংশে যারা মৃত হয়েছেন, যারা বর্তমান আছেন এবং যারা ভবিষ্যতে জন্মগ্রহণ করবেন তারা সকলেই কল্পান্ত কাল পর্যন্ত শ্রীহরির গৃহে বাস করেন

২) যে স্থানে বায়ু তুলসী গন্ধ বহন করে প্রবাহিত হয় তার চতুর্দিকের সমস্ত জীবই শুদ্ধ হয়ে যায়।

৩) যে তুলসী বনে তুলসী বীজ পতিত হয় সেখানে পিতৃগণের উদ্দেশ্যে পিণ্ড দিলে সে পিণ্ড অক্ষয় হয়ে থাকে

৪) প্রতিদিন তুলসী (১) দর্শন, (২) স্পর্শ, (৩) চিন্তন, (৪) কীর্তন, (৫) প্রণাম, (৬) গুণ শ্রবণ, (৭) রোপণ, (৮) অর্চন ও (৯) সেবা করলে সকল পাপ ভস্মীভূত হয় এবং অন্তে শ্রীহরির ধামে বসতি লাভ করে।

৫) বৈশাখ মাহাত্ম্যে বলা হয়েছে, পুষ্করাদি তীর্থ, গঙ্গাদি নদী এবং ভগবান বিষ্ণু তুলসীদলে অবস্থান করে থাকেন

৬) যে গৃহে তুলসী জলদ্বারা সকলে অভিষিক্ত হয়, যমদূতেরা সেই গৃহে প্রবেশ করতে পারে না

৭)  হরিতকী ফল যেরূপ রোগ দূরীভূত করে সেইরূপ তুলসী বহু দারিদ্র্য দুঃখহারিণী

৮) তুলসী সন্নিকটে দেহ ত্যাগ করলে তার হরিধাম (বিষ্ণুলোক) প্রাপ্ত হয়।

৯) ভোরে ঘুম থেকে উঠে অপর দ্রব্য দর্শন না করে প্রথমেই তুলসী দর্শন করলে তৎক্ষণাৎ তার দিবারাত্র কৃতপাপ বিনষ্ট হয়

১০) যিনি তুলসী বৃক্ষ রোপণ করেন, তার পিতৃ-মাতৃকুলের সপ্তকোটি পুরুষ হরিসন্নিধানে অবস্থান করে।

১১) তুলসী বৃক্ষে গন্ডূষ পরিমাণে জল (হাতের তালুতে ধারণ করা কিছু পরিমাণ জল) প্রতিদিন সেচন (সিঞ্চন) করলে হরিসন্নিধানে বসতি লাভ হয়।

১২) তুলসী বনের চারদিকে কাঠের বেড়া দিয়ে বেষ্টন করলে সেই বেড়া-প্রদানকারীর ত্রিকুল সহ ভগবৎ ধামে অবস্থান করেন

১৩) প্রলয়কালীন আগুন যেমন নিখিল (সমগ্র, সম্পূর্ণ) দ্রব্য ভষ্মীভূত করে তদ্রুপ তুলসী মহিমা শ্রবণ, দর্শন, রোপণ, জল সেচন, প্রণাম দ্বারা অখিল (সমগ্র, সম্পূর্ণ) পাপ দগ্ধ হয়।

১৪) বুধবারশ্রবণা নক্ষত্রযুক্ত শুক্লা তৃতীয়াতে তুলসী রোপণ করলে তুলসীদেবী অতি পুণ্যদায়িনী হন।

─•━━⊱♦️✥♦️⊰•⊰❁*❀❁❁❀*❁⊱⊱♦️✥♦️⊰•━━•─

তুলসী মাহাত্ম্য (Tulasi Mahatyam)✸তুলসী পূজা ও বিধি-নিষেধ_2

✤✸ তুলসী কথা কীর্তন পাপ বিনাশিনী ✸✤

অতি প্রাচীনকালে কাশ্মীর দেশে হরিমেধা সুমেধা নামে দুইজন ব্রাহ্মণ বাস করতেন। এক সময় ঐ দুই ব্রাহ্মণ তীর্থ যাত্রায় গমন করলে পথে এক তুলসী বন  দেখতে পান। ব্রাহ্মণ সুমেধা তুলসী বন দর্শন করে প্রণাম সেরে প্রদক্ষিণ করলেন।

এই দেখে হরিমেধা বললেন━ আপনি এত শ্রেষ্ঠদের, তীর্থ ও ব্রাহ্মণ থাকতে কেন তুলসী বনকে প্রদক্ষিণ করলেন। তখন সুমেধা বললেন━ঐ বট বৃক্ষের ছায়ায় চলুন, আমি আপনার কাছে তুলসীর কথা কীর্তন করব। বট বৃক্ষ ছায়ায় বসে সুমেধা তুলসী মাহাত্ম্য বলতে লাগলেন।

প্রাচীনকালে দুর্বাসার অভিশাপে ইন্দ্র হতশ্রী হলে দেব-দানবগণ ক্ষীর সাগর মন্থন করেন। মথিত সাগর হতে কল্পবৃক্ষ, চন্দ্র কমলাদেবী, ধন্বন্তরী উৎপন্ন হন। অনন্তর অমৃত কলস উৎপন্ন হলে বিষ্ণু তা হস্তদ্বারা গ্রহণ পূর্বক দর্শন করে আনন্দিত হন। তাঁর আনন্দাশ্রুবিন্দু সকল অমৃত কলসে পতিত হয় এবং মণ্ডলাকারে তুলসী বৃক্ষ উৎপন্ন হয়। তখন ব্রহ্মাদি দেবগণ সর্বসুলক্ষণ সম্পন্ন সর্বাভরণে ভূষিতা তুলসীদেবীকে শ্রীবিষ্ণুর হাতে অর্পণ করেন। ভগবান বিষ্ণুও তাঁকে সাদরে গ্রহণ করেন। সেই থেকে তুলসীদেবী বিষ্ণুসদৃশ পূজিতা হন। ভগবান বিষ্ণু জগতের মঙ্গলকর্তা এবং তুলসী তাঁরই প্রিয়া। এজন্যে আমি তাকে প্রণাম-প্রদক্ষিণ করেছি।

ব্রাহ্মণ সুমেধা এভাবে তুলসী মাহাত্ম্য কীর্তন করলে অদূরে এক দিব্য বিমান এলো এবং বটবৃক্ষও পতিত হলো। সেই পতিত বটবৃক্ষ হতে দু’জন দিব্যপুরুষ এসে সুমেধা ও হরিমেধাকে প্রণাম করলেন । সুমেধা ও হরিমেধা দিব্য পুরুষদ্বয়কে প্রশ্ন করলেন, আপনারা দু’জন কে? আপনাদের এরূপ অবস্থার কারণ কি? 

পুরুষদ্বয়ের মধ্যে একজন বলল, আমার নাম আস্তিক, আমার বাসস্থান দেবলোকে। আমি এক সময় নন্দন বনে অপ্সরার সঙ্গে বিচরণ করছিলাম। তাঁর পাশেই লোমশ মুনি তপস্যা করছিলেন। তিনি আমার ব্যবহারে ক্রোধান্বিত হয়ে অভিশাপ দেন ━ তুমি ব্ৰহ্মরাক্ষস হয়ে বটবৃক্ষে বিচরণ কর। আমি তখন বিভিন্ন প্রার্থনা দ্বারা ঋষিকে প্রসন্ন করলে তিনি আমার প্রতি শাপমোচন বাণী প্রয়োগ করে বললেন━ তুমি যখন দ্বিজ (ব্রাহ্মণ) মুখে তুলসী মাহাত্ম্য ও বিষ্ণুর নাম শ্রবণ করবে তখন অভিশাপ মুক্ত হবে। এরূপে আমি মুনি কর্তৃক অভিশপ্ত হয়ে দীর্ঘকাল এই বটবৃক্ষে বাস করছিলাম। দৈবাৎ আপনাদের মুখে তুলসী মাহাত্ম্য শ্রবণ করে শাপ মুক্ত হলাম। আমার সঙ্গী এই দ্বিতীয় পুরুষটিও গুরু আদেশ অনাদর করে ব্রহ্মরাক্ষস হয়েছে, ইনিও আপনাদের অনুগ্রহে শাপ মুক্ত হলেন। আপনাদের তীর্থযাত্রার ফল এই স্থানেই সম্পন্ন হলো। তবে আপনাদের ভক্তি অনুদিন বৃদ্ধি প্রাপ্ত হবে। তারপর সেই দিব্য পুরুষদ্বয় হরিমেধা ও সুমেধাকে প্রণাম করে নিজ ধামে গমন করলেন।

─•━━⊱♦️✥♦️⊰•⊰❁*❀❁❁❀*❁⊱⊱♦️✥♦️⊰•━━•─

✤✸ ঐকান্তিক সেবা নিষ্ঠায় শ্রীবৃন্দা দেবীর কৃপা ✸✤

কাম্যবনে মদন মোহনের সেবা করতেন জয় কৃষ্ণদাস বাবাজী মহারাজ। এক সময় তরুণ বয়স্ক এক কনিষ্ঠ ভক্ত তাঁর কাছে ভজন শিক্ষার জন্য আসেন। কিছুদিন অতীত হলে কনিষ্ঠ ভক্তের সেবায় সন্তুষ্ট হয়ে তাঁকে রাগানুগা ভজন শিক্ষা দিতে জয় কৃষ্ণদাস বাবাজী মহারাজ মনস্থ করলেন। বাবাজী কনিষ্ঠ ভক্তের কাছে তার গুরু প্রণালী জানাতে চাইলেন । কনিষ্ঠ ভক্ত বললেন গুরু প্রণালী কি তা আমি জানি না এবং গুরুদেবের কাছে এবিষয়ে কিছু জিজ্ঞাসাও করিনি। মহারাজ বললেন━ তুমি বাংলায় গিয়ে তোমার গুরুদেবের কাছ থেকে গুরু প্রণালী নিয়ে এসো। বাবাজী মহারাজের স্নিগ্ধ ব্যবহার ও আদর এবং মদন মোহনের সেবা ছেড়ে গৌড়দেশে যেতে হবে বলে কনিষ্ঠ ভক্ত কেঁদে আকুল। কিন্তু একপ্রকার বাধ্য হয়েই কনিষ্ঠ ভক্ত দেশে যাত্রা করলেন।

কনিষ্ঠ ভক্ত কাতর হয়ে শ্রীমতী বৃন্দাদেবীরাধারাণীর নিকট প্রার্থনা করলে যে, গাড়িতে ওঠার আগেই যেন ব্রজভূমে তার প্রাণবিয়োগ হয়। শ্রীমতি বৃন্দাদেবী ও রাধারাণী তার প্রার্থনা শুনলেন। কনিষ্ঠ ভক্ত গাড়ির নিকট যাওয়ার আগেই গাড়ি স্টেশন ছেড়ে চলে গেল। কনিষ্ঠ ভক্ত তখন আর কি করবেন। তিনি পুনরায় ভজন কুটিরে ফিরে আসার সঙ্কল্প করলেন।

এদিকে শ্রীবৃন্দাদেবী ঐ রাত্রে স্বপ্নে বাবাজী মহারাজকে ধমক দিয়ে বলছেন━ তুই কেন নবীন ভক্তকে বাইরে পাঠালি? তার গুরু প্রণালী তো তোর ঠাকুরের সিংহাসনেই রয়েছে। জয় কৃষ্ণদাস বাবাজী মহারাজ চমকে জেগে উঠলেন। শ্রীবৃন্দাদেবীর পুনঃদর্শন না পেয়ে কেঁদে কেঁদে আকুল হলেন এবং বৃন্দাদেবীর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করলেন।

সকালে স্নান সেরে তিনি শ্রীমদনমোহনের মন্দিরে প্রবেশ করলেন। মদনমোহনের সিংহাসনে শ্রীগুরু প্রণালী পেয়ে বক্ষে ধারণ করলেন। শ্রীমতী বৃন্দাদেবীর কৃপা স্মরণপূর্বক শ্রীগোবিন্দ মন্দিরে গিয়ে বৃন্দাদেবীর স্মরণ করে অনেক কান্নাকাটি করলেন এবং নবীন ভক্তকে ফিরিয়ে আনার জন্য তাঁর কাছে প্রার্থনা করলেন।

ঐদিন সন্ধ্যাকালে নবীন ভক্ত ভজন কুটিরে ফিরে আসেন। বাবাজী মহারাজ নবীন ভক্তকে জিজ্ঞাসা করলেন━ কেন এবং কিভাবে ফিরে এলে? নবীন ভক্ত গাড়ি না পাওয়ার কথা খুলে বলল। বাবাজী মহারাজ নবীন ভক্তকে শ্রীবৃন্দাদেবীর কৃপার কথা স্মরণ করে তাকে আলিঙ্গন করে নয়ন জলে অভিষিক্ত করলেন। তারপর বৃন্দাদেবীর স্বপ্নের কাহিনী বিস্তারিত বললেন এবং গুরু প্রণালীও যে প্রাপ্ত হয়েছে তাও জানালেন।

─•━━⊱♦️✥♦️⊰•⊰❁*❀❁❁❀*❁⊱⊱♦️✥♦️⊰•━━•─

তুলসী মাহাত্ম্য (Tulasi Mahatyam)✸তুলসী পূজা ও বিধি-নিষেধ_4

✤✸ তুলসীর গুণ তত্ত্ব ✸✤

ভগবান শ্রীহরি তুলসীকে বরদান পূর্বক অঙ্গীকার করে বলেছেন-

🕉️ ১। তুলসী ছাড়া পূজা, পূজার মধ্যে গণ্য নয়।  তুলসী ছাড়া ভোজন, ভোজন নয়। তুলসী ছাড়া পানীয়, পানীয় হিসাবে গণ্য হয় না।

🕉️ ২। স্বর্গ-মর্ত্য, পাতাল, বৈকুণ্ঠ ও হরি সন্নিধানে তুলসীবৃক্ষ সকল পুষ্প থেকে শ্রেষ্ঠ হবে।

🕉️ ৩। পুন্যপ্রদ তুলসীবৃদ্ধ গোলকের বিরজা তীরে, রাসমন্ডলে, বৃন্দাবন ভূমিতে, ভান্ডীর বনে, রমনীয় চম্পকবনে, চন্দন কাননে, মাধবী, কেতকী, কুন্দ, মল্লিকা ও মালতী বনে এবং অন্যান্য যাবতীয় পুন্যস্থানে উৎপন্ন হবে।

🕉️ ৪। পুন্যপ্রদ তুলসী বৃক্ষমূলে সকল তীর্থের অধিষ্ঠান হবে। সেই স্থানে সমস্ত দেবগন পতিত তুলসী পত্রের প্রত্যাশায় অধিষ্ঠান করবেন।

🕉️ ৫। যে ব্যক্তি তুলসীপত্র জলে অভিষিক্ত হবেন, তিনি সকল তীর্থস্থান ও সর্ব্বযজ্ঞে দীক্ষার ফল লাভ করবেন।

🕉️ ৬। সুধাপূর্ণ সহস্র ঘঠদানে হরির যে প্রীতি না হয়, মানবগণ এক তুলসীপত্র প্রদানে সেই প্রীতি সম্পাদন করবে।

🕉️ ৭। মনুষ্যগণ অযুত গোদান করে যে ফল লাভ হয়, এক তুলসীপত্র দান করে সেই ফল লাভ করবে, মৃত্যুকালে যিনি তুলসীপত্রের জল প্রাপ্ত হবেন, তিনি সমস্ত পাপ হতে মুক্ত হয়ে বিষ্ণুলোকে গমন করবেন।

🕉️ ৮। যে মনুষ্য নিত্য তুলসী পত্রের জল পান করবেন, তিনি জীবন্মুক্ত হয়ে গঙ্গাস্নানের ফল ভাগী হবেন।

🕉️ ৯। যে মানব নিত্য তুলসী পত্র দ্বারা শ্রীহরির পূজা করেন, নিশ্চয় তাঁর লক্ষ অশ্বমেধ যজ্ঞের পূণ্য হবে।

🕉️ ১০। মনুষ্যগণ দেহে তুলসী ধারণ করে দেহত্যাগ করলে বিষ্ণুলোকে গতি হবে।

🕉️ ১১। যে মানুষ তুলসী কাষ্ঠ নির্মিত মালা ধারণ করবে, তার পদে পদে অশ্বমেধ যজ্ঞের ফল হবে। যে ব্যক্তি মৃত্যুকালে তুলসীজলের কনামাত্র প্রাপ্ত হবে সে বৈকুন্ঠে গমন করবে। তুলসী মালা ধারণকারীকে কখনও যমদূত স্পর্শ করতে পারে না। তুলসী ধারণ/স্পর্শ করে মিথ্যা শপথ বা অঙ্গীকার করা মহাঅপরাধ ।

🕉️ ১২। পূর্ণিমা, অমাবস্যা, দ্বাদশী ও সংক্রান্তি দিবসে, তৈলযুক্ত হয়ে স্নানের সময়, মধ্যাহ্নে, রাত্রিকালে, উভয় সন্ধ্যাকালে, রাত্রিবাস (বাসী কাপড়) পরিধান করে তুলসী চয়ন করলে শ্রীহরির শিরচ্ছেদ করার অপরাধে অপরাধী হতে হবে।

🕉️ ১৩। তুলসীপত্র ত্রিরাত্রি পর্যুষিত (বাসি) হলেও, তা-শ্রাদ্ধ, ব্রত, দান, প্রতিষ্ঠা ও দেব পূজাদি এবং অন্যান্য কার্যে শুদ্ধ হবে। ভগবানের উদ্দেশ্যে প্রদত্ত তুলসীপত্র মৃত্তিকা বা জলে পতিত হলেও তা প্রক্ষালন করলে অন্যান্য কার্যে শুদ্ধ হবে।

🕉️ ১৪। শালগ্রাম শিলা, নারায়ণ শিলা, তুলসী ও শঙ্খকে যিনি একস্থানে রাখেন তিনি মহাজ্ঞানী ও শ্রীহরির অতি প্রিয় হবেন।

🕉️ ১৫। তুলসী কৃষ্ণভক্তি প্রদায়িনী, চক্তিদেবী। নিত্য নববিধা তুলসী সেবা প্রত্যেকেরই কর্তব্য, কল্যাণ লাভ হয়ে থাকে। নববিধা তুলসী ভজনা হল- (১)দর্শন, (২) স্পর্শন, (৩) ধ্যান, (৪) গুণ-কীৰ্ত্তন, (৫) প্রণাম, (৬) গুণ-শ্রবণ, (৭) রোপণ, (৮) জল সিঞ্চন দ্বারা সেবন ও (৯) তাঁর পূজা তুলসীর নিত্য ভজনা-কর্তার সহস্ৰকোটী যুগ বিষ্ণুলোকে বসতি লাভ হয়।

তুলসী গুণকীর্তন ও মাহাত্বের বর্ণনার কোন শেষ হয় না, তবুও সংক্ষিপ্ত ভাবে বর্ণন করার প্রয়াস হল মাত্র। 

─•━━⊱♦️✥♦️⊰•⊰❁*❀❁❁❀*❁⊱⊱♦️✥♦️⊰•━━•─

◼️ তুলসী পূজা কীর্তন ◼️

প্রাতঃকালে মঙ্গলারতির পরে এবং বিশেষ করে সন্ধ্যাকালেও সন্ধ্যারতির আগে সমবেত সকল ভক্তমণ্ডলী অবশ্যই প্রথমে ৩বার তুলসী প্রণাম মন্ত্র উচ্চারণ করে তুলসীদেবীকে প্রণতি নিবেদন করবেন। — তারপরে তুলসী আরতি কীর্তন করবেন। আরতি নিবেদনকালে ভক্ত ধূপ, ঘৃতপ্রদীপপুষ্পার্ঘ্য সহকারে তুলসীদেবীর উদ্দেশ্যে আরতি নিবেদন করেন। এই উপকরণাদি নিবেদনের সময়ে, তুলসী আরতি করতে হলে ভক্তকে একটি আসনের উপর (উত্তর-পূর্ব দিকে মুখ করে) দাঁড়াতে হবে এবং তিনি বাঁহাতে ঘণ্টা বাজাতে থাকবেন।

তুলসীদেবীকে নিবেদনের পরে প্রতিটি উপকরণকে সমবেত ভক্তবৃন্দের উদ্দেশ্যে চক্রাকারে ৩বার ঘুরিয়ে বিতরণ করবেন। তুলসীপূজা কীর্তন গান শেষ হয়ে গেলে, সমবেত বৈষ্ণবমণ্ডলী অন্তত ৪বার তুলসীদেবীকে প্রদক্ষিণ করবেন এবং তুলসী জলদান অর্থাৎ কয়েক ফোঁটা জল তুলসীর মূলদেশে (কেবলমাত্র প্রাতঃকালীন পূজার সময়ে সন্ধ্যায় নয়) নিবেদন করবেন।

আরতি করার নিয়ম

🕉️ উপকরণআচমন পাত্র, ধুপকাঠি, প্রদীপ, পুষ্প, ঘন্টা

🕉️ নিবেদন নিয়মধুপকাঠি, প্রদীপ, পুষ্প সবগুলি উপকরণই সর্বাঙ্গে ৭বার করে ঘুরিয়ে (ঘরির কাটার দিকে বাম দিক থেকে ডান দিকে) দেখাবেন। প্রত্যেকটা উপকরণ দেখানোর আগে-পরে আচমন করে নেবেন।

🕉️ আরতির সময়: ভক্তরা দুই বেলা তুলসী আরতি করে থাকেন।

সকালে(ভোরে)- মঙ্গল আরতির পর।
রাতে- গৌর আরতি বা সন্ধ্যা আরতির আগে।

তুলসী পূজা কীর্তন_তুলসী মাহাত্ম্য (Tulasi Mahatyam)✸তুলসী পূজা ও বিধি-নিষেধ

✤✸ তুলসী প্রনাম মন্ত্র ✸✤

❝ (ওঁ) বৃন্দায়ৈ তুলসী দেব্যৈ প্রিয়ায়ৈ কেশবস্য চ।
কৃষ্ণভক্তিপ্রদে দেবি সত্যবত্যৈ নমো নমঃ॥ ❞

━━┉┈┈(৩ বার)

অনুবাদ:ভগবান শ্রীকেশবের অতি প্রিয় বৃন্দা, শ্রীমতী তুলসীদেবীর উদ্দেশ্যে আমার পুনঃ পুনঃ প্রণতি নিবেদন করি। হে দেবী সত্যবতী, শ্রীকৃষ্ণের উদ্দেশ্যে আপনি আমাদের ভক্তি প্রদান করুন।

✤✸ তুলসী আরতি কীর্তন ✸✤

    নমো নমঃ তুলসী!       কৃষ্ণপ্রেয়সী !

         রাধাকৃষ্ণ-সেবা পাব এই অভিলাষী ॥

    যে তোমার শরণ লয়,        তার বাঞ্ছা পূর্ণ হয়,

         কৃপা করি কর তারে বৃন্দাবন বাসী।

    মোর এই অভিলাষ,    বিলাস-কুঞ্জে দিও বাস,

           নয়নে হেরিব সদা যুগলরূপরাশি ॥

    এই নিবেদন ধর,                সখীর অনুগত কর,

          সেবা-অধিকার দিয়ে কর নিজ দাসী।

    দীন কৃষ্ণদাসে কয়,              এই যেন মোর হয়,

         শ্রীরাধাগোবিন্দ-প্রেমে সদা যেন ভাসি ॥

অনুবাদ:  (১) হে তুলসী, কৃষ্ণপ্রেয়সী, আমি বার বার তোমাকে  প্রণাম করি, শ্রীশ্রীরাধাকৃষ্ণের সেবার আমি অভিলাষী।

(২) যে তোমার শরণ গ্রহণ করে তার মনোবাসনা পূর্ণ হয়। কৃপা করে তুমি তাকে বৃন্দাবনবাসী কর।

(৩) বৃন্দাবনধামে বিলাসকুঞ্জে বাস করার আমার যে অভিলাষ তুমি পূর্ণ কর, যাতে নয়নভরে সব সময় আমি শ্রীশ্রীরাধাকৃষ্ণের সুন্দর লীলা দর্শন করতে পারি।

(৪) আমার প্রার্থনা এই যে, তুমি আমাকে ব্রজের সখীদের অনুগত কর। সেবার অধিকার দিয়ে আমাকে তোমার দাসী কর।

(৫) শ্রীকৃষ্ণের এক একান্ত পতিত ও দীন সেবক বিনতি নিবেদন করছে যে, “আমি যেন সব সময় শ্রীরাধাগোবিন্দ প্রেমে ভাসতে পারি।

✤✸ তুলসী প্রদক্ষিণ মন্ত্র ✸✤

যানি কানি চ পাপানি ব্রহ্মহত্যাদিকানি চ
তানি তানি প্রণশ্যন্তি প্রদক্ষিণ পদে পদে॥ ❞

━━┉┈┈(৪ বার)

অনুবাদ:  যখন মানুষ শ্রীমতী তুলসীদেবীকে প্রদক্ষিণ করতে থাকে, তখন প্রতি পদক্ষেপে তার কৃত সকল পাপকর্ম, এমন কি ব্রহ্মহত্যার পাপও বিনষ্ট হয়ে যায়।

✤✸ তুলসী জলদান মন্ত্র ✸✤

❝ (ওঁ) গোবিন্দবল্লভাং দেবীং ভক্তচৈতন্যকারিণীম্
স্নাপয়ামি জগদ্ধাত্রীং কৃষ্ণভক্তিপ্রদায়িনীম্॥ ❞

অনুবাদ:  শ্রীগোবিন্দের প্রিয়তমা, জগজ্জননী, সকল ভক্তবৃন্দের চেতনা প্রদায়িনী এবং শ্রীকৃষ্ণে ভক্তিপ্রদায়িনী শ্রীমতী তুলসীদেবী, আপনাকে আমি স্নানসেবা নিবেদন করছি।

✤✸ তুলসী চয়ন মন্ত্র ✸✤

❝ (ওঁ) তুলস্যমৃতজন্মাসি সদা ত্বং কেশবপ্রিয়া।
কেশবার্থে চিনোমি ত্বাং বরদা ভব শোভনে॥ ❞

অনুবাদ: হে তুলসী, অমৃত থেকে আপনার জন্ম। আপনি নিয়ত ভগবান শ্রীকেশবের অতীব প্রিয়। এখন শ্রীকেশবের পূজার উদ্দেশ্যে আপনার পত্র ও মঞ্জরী আমি সংগ্রহ করছি কৃপা করে আমাকে বরদান করুন।

তুলসীচয়ণ বিধি
================

প্রাতঃকালে স্নানের পর শুদ্ধ বস্ত্র পরিধান করে পুষ্প চয়ন ও তুলসী চয়নের নিয়ম ৷ মধ্যাহ্ন স্নানের পর পুষ্প ও তুলসী চয়ন নিষিদ্ধ ৷ ভগবানকে প্রণাম করে এবং তার আদেশ নিয়ে তুলসী ও পুষ্প চয়ন করতে হয় ৷ অছিদ্র হরিৎপত্র তুলসীই শ্রীকৃষ্ণার্চ্চনের যোগ্য অর্থাৎ ছেঁড়া তুলসী পাতা অর্পণ করবেন না। তিনবার করতালি দিয়ে তুলসীর শাখা-প্রশাখা কম্পন না হয় এমনভাবে বামহাত দিয়ে এক একটি শাখা ধরে ডানহাত দিয়ে মঞ্জুরীবৃন্ত সহ তুলসী পত্র চয়ন করতে হয় ৷ তুলসীর পত্র চয়ন কালে যদি শাখা-প্রশাখা ভেঙ্গে যায়, তবে শ্রীহরির হৃদয়ে ব্যথা প্রদান করা হয় ৷

তুলসীচয়ণ নিষেধাঞ্জা
====================

পূর্ণিমা, অমবাস্যা, দ্বাদশীসংক্রান্তিতে তুলসীপত্র চয়ন করতে নেই। তেল মেখে, মধ্যাহ্নে স্নান না করে, সকালে সূর্যোদয়ের আগে কিংবা সন্ধায় সূর্যাস্তের পরে, ও রাত্রিবাস (রাতে যে পোশাক পরিধান করে ঘুমানো হয়) পরিধান করে যে তুলসী চয়ন করে, তাঁহার হরির মস্তক ছেদন করে।

✤✸ তুলসী ক্ষমা প্রার্থনা মন্ত্র ✸✤

❝ চয়নোদ্ভবদুঃখং চ যদ্ হৃদি তব বর্ততে।
তৎ ক্ষমস্ব জগন্মাতঃ বৃন্দাদেবি নমোঽস্তুতে॥ ❞

অনুবাদ:  হে তুলসী দেবী, আপনাকে আমার সশ্রদ্ধ প্রণতি জানাই। হে জগন্মাতা, আপনার পত্র ও মঞ্জরী চয়নকালে যদি আপনার হৃদয়ে দুঃখের উদ্ভব করে থাকি, তবে কৃপা করে আমাকে ক্ষমা করবেন।

✤✸ তুলসী স্তব ✸✤

❝ বৃন্দাং বৃন্দাবনীং বিশ্বপূজিতাং বিশ্বপাবনীং।
পুষ্পসারাং নন্দিনীর্ষভ তুলসীং কৃষ্ণজীবনীং ॥
এতন্নামাষ্টকঞ্চৈতৎ স্তোত্রং জ্ঞতার্থ সংযুতং ।
যঃ পঠেত্তাঞ্চ সম্পূজ্য সোহশ্বমেধ ফলং লভেৎ॥ ❞ 

 ━━┉┈┈‌(ব্রহ্মাবৈবর্ত্ত পুরাণ)

অনুবাদ:  যারা এই স্তব প্রতিদিন পাঠ করেন, তারা অশ্বমেধ ফল লাভ করেন। 

❝ হরে কৃষ্ণ, হরে কৃষ্ণ, কৃষ্ণ কৃষ্ণ হরে হরে।
হরে রাম, হরে রাম, রাম রাম হরে হরে॥ ❞

🌸 শ্রী শ্রী রাধামাধব কি জয় 🌸

 🌸 জয় শ্রীশ্রী-বৃন্দাদেবী-তুলসী-মহারানী কি জয় 🌸

🌸 শ্রীল প্রভুপাদ কি জয়  🌸

─•━━⊱♦️✥♦️⊰•⊰❁*❀❁❁❀*❁⊱⊱♦️✥♦️⊰•━━•─

তুলসী পূজা কীর্তন_তুলসী মাহাত্ম্য (Tulasi Mahatyam)✸তুলসী পূজা ও বিধি-নিষেধ-2

◼️ তুলসী সম্পর্কে বিধি-নিষেধ ◼️

কি করনীয়
=============

১৷ প্রতিদিন তুলসী বৃক্ষে জল দান করতে হয় এবং গ্রীষ্মকালে ছায়ার মধ্যে রাখতে হয় ৷

২৷ তুলসী বৃক্ষের নীচে প্রতিদিন প্রদীপ প্রজ্জলন করতে হয়
৩৷ কেবলমাত্র বিষ্ণুতত্ত্ব-বিগ্রহ এবং আলেখ্য সমূহের চরণ কমলে ভক্তিসহ তুলসীপত্র নিবেদন করতে হয় অন্য কাউকে নয়৷ অর্থাৎ শ্রীকৃষ্ণ, শ্রীনৃসিংহদেব, শ্রীনারায়ণ, শ্রীজগন্নাথদেব, বলরামদেব, শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভু, নিত্যানন্দ প্রভু, অদ্বৈত প্রভু প্রভৃতির পাদপদ্মেই কেবল তুলসীপত্র অর্পণ করা যায় ৷ শ্রীবাস পন্ডিত, গদাধর পন্ডিত, এমন কি রাধারানীর পাদপদ্মেও তুলসীপত্র নিবেদন করা যায় নাগুরুদেবের চরণেও নিবেদন করা যায় না ৷ গুরুদেব ভগবানের প্রিয় সেবকমাত্র এবং তিনি ভগবানের ভক্ত৷ আর তুলসী হচ্ছেন গোবিন্দবল্লভা, শ্রীকৃষ্ণের প্রেয়সী। একমাত্র বিষ্ণুতত্ত্ব ব্যতীত কারও চরণে তুলসীপত্র অর্পণ করা কখনই উচিত নয়, কারণ তা মহাঅপরাধশ্রীঅনন্ত সংহিতা শাস্ত্রে পরিষ্কার উল্লেখ রয়েছে——-
❝ তুলস্যা বিষয়ং তত্ত্বং বিষ্ণুমেব সমর্চয়েৎ ।
সা দেবী কৃষ্ণশক্তিহি শ্রীকৃষ্ণবল্লভা মতা ॥
অতস্তাং বৈষ্ণবীং দেবীং নান্যপদে সমর্পয়েৎ ।
অর্পণে তত্ত্বহানিংঃ স্যাৎ সেবাপরাধ এব চ॥
অতত্ত্বজ্ঞস্ত পাষণ্ডো গুরুব্রুবস্য পাদয়োঃ।
অর্পয়ন্ তুলসীং দেবীমর্জয়েন্নরকং পদম্॥ ❞
৪। তুলসীদেবী কৃষ্ণশক্তি, শ্রীকৃষ্ণের প্রিয়তমা। তিনি পরম বৈষ্ণবী। শ্রীবিষ্ণু তত্ত্ব ছাড়া (যেমন শ্রীকৃষ্ণ, শ্রীনৃসিংহদেব, শ্রীনারায়ণ, শ্রীজগন্নাথদেব, বলরামদেব, শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভু, নিত্যানন্দ প্রভু, অদ্বৈত প্রভু) অন্য কারও পদে তুলসীপত্রাদী অর্পণ করা উচিত নয়। যদি কেউ অর্পণ করে তবে সে তত্ত্বজ্ঞানহীন হয় এবং তার সেবা অপরাধ হয়। আর যে তত্ত্বজ্ঞানহীন পাষণ্ড গুরুদেবের চরণে তুলসী অর্পণ করে তার নরকগতিই লাভ হয়। যে ব্যক্তি চরণে তুলসীপত্র গ্রহণ করে সে কখনই গুরু নয়। সে পরমগুরুতত্ত্ব বিরােধী।
বায়ুপুরাণে মহর্ষি ব্যাসদেব সেই কথা উল্লেখ করেছেন——-
❝ তুলসীদল মাত্রায় যোহন্যং দেবং প্রপূজয়েৎ।
ব্রহ্মহা স হি গোঘ্নশ্চ স এব গুরুতল্পগঃ॥ ❞
অনুবাদ:  যে ব্যক্তি তুলসীপত্র দ্বারা অন্য দেবদেবীর পূজা করে তার নিশ্চয়ই ব্রহ্মহত্যা, গো-হত্যা ও গুরুপত্নী গমনের পাপ অর্জিত হয়ে থাকে।
৫। ভগবানকে ভোগ নিবেদনের সময় প্রত্যেক সামগ্রীতে একটি করে তুলসী পাতা বা মঞ্জরী দিতে হয়
কি বর্জনীয় 
=============

১। পূর্ণিমা, অমবাস্যা, দ্বাদশীসংক্রান্তিতে তুলসীপত্র চয়ন করতে নেই। তেল মেখে, মধ্যাহ্নে স্নান না করে, সকালে সূর্যোদয়ের আগে কিংবা সন্ধায় সূর্যাস্তের পরে, ও রাত্রিবাস (রাতে যে পোশাক পরিধান করে ঘুমানো হয়) পরিধান করে যে তুলসী চয়ন করে, তাঁহার হরির মস্তক ছেদন করে। আগের কিংবা সকালে তোলা তুলসীপত্র শুখিয়ে গেলেও, তা শ্রীবিগ্রহ অর্চ্চনায় ব্যবহার করা চলে

২। সকল ভক্তের উচিৎ কয়েকটি তুলসী গাছ বাড়িতে রাখা এবং খুব সতর্কতার সাথে এগুলোর যত্ন করা। কারণ তুলসী হলেন কৃষ্ণ প্রেয়সী। তুলসী গাছ গুলো এমন যায়গায় রাখতে হবে যাতে মানুষ অথবা পশু তাঁর উপর দিয়ে হেঁটে যেতে না পারে, তাঁকে দুমরে মুচরে দিতে না পারে। মঞ্জরী গুলো কচি অবস্থায় অবশ্যই জোড়া তুলসী পাতা সমেত হাত দিয়ে (তবে নখ দিয়ে নয়) ভেঙ্গে দিলে গাছটি অত্যন্ত সুস্থ ও সবলভাবে বেড়ে উঠবে।  তুলসী পাতা সমেত মঞ্জরী ভেঙে গোবিন্দের চরনে চন্দন দিয়ে নিবেদন করবেন।
কারণ, ১ টি মঞ্জরী= ১০০০ পাতা। তাই মঞ্জরী ফেলে দিলে পাপ হয়।
৩৷ তুলসী বৃক্ষকে সর্বদা জীবজন্তুদের নাগালের বাইরে রাখা উচিৎ ৷ পথের পাশে তুলসী বৃক্ষ রাখতে নেই, কেননা লোকজন অজান্তেই তার ক্ষতি সাধন করতে পারে ৷
৪। শ্রীমতী তুলসীদেবীর যাতে কোনও প্রকার ব্যথা সৃষ্টি না হয়, সেই বিষয়ে বিশেষ যত্নবান হতে হয়। ডান হাত দিয়ে তাঁর পত্র চয়ণের সময়ে বামহাত দিয়ে শাখাটিকে ধরে রাখতে হয় যাতে সেটি ভেঙ্গে না যায়। তুলসী পত্র চয়ণের শেষে ক্ষমা প্রার্থনা করতে হয়।

─•━━⊱♦️✥♦️⊰•⊰❁*❀❁❁❀*❁⊱⊱♦️✥♦️⊰•━━•─

◼️তুলসী মাহাত্ম্য ◼️

১। পদ্মপুরাণের সৃষ্টিখন্ডে (৬০/১০৫ শ্লোকে) বৈষ্ণবশ্রেষ্ঠ শ্রীমহাদেব পুত্র কার্তিককে বললেন,

❝ সর্বেভ্যঃ পত্রপুষ্পেভ্যঃ সত্তমা তুলসী শিবা।
সর্বকামপ্রদা শুদ্ধা বৈষ্ণবী বিষ্ণুসুপ্রিয়া॥ ❞

অনুবাদ:সমস্ত পত্র ও পুষ্পের মধ্যে তুলসী হলেন শ্রেষ্ঠা। তুলসী সর্বকামপ্রদা, মঙ্গলময়ী, শুদ্ধা, মুখ্যা, বৈষ্ণবী, বিষ্ণুর প্রেয়সী এবং সর্বলোকে পরম শুভা।

সমগ্র পুষ্পের মধ্যে তুলসী শ্রেষ্ঠ এবং শ্রীহরি, দেব-দেবী সকল, ব্রাহ্মণ এবং বৈষ্ণবগণের আনন্দবর্ধনকারিণী। তিনি অতুলনীয়া এবং কৃষ্ণের জীবনস্বরূপিনী।

২। পদ্মপুরাণের সৃষ্টিখন্ডে (৬০/১১৭-১১৮ শ্লোকে) বৈষ্ণব শিরোমণি শ্রীমহাদেব পুত্র কার্তিককে আরও বললেন,

❝ যো মঞ্জরীদলৈরেব তুলস্যা বিষ্ণুমর্চয়েঃ ।
তস্য পুণ্যফলং স্কন্দ কথিতুং নৈব শক্যতে॥
তত্র কেশবসান্নিধ্যং যত্রাস্তি তুলসীবনম্।
তত্র ব্রহ্মা চ কমলা সর্বদেবগণৈঃ সহ॥ ❞

অনুবাদ:হে কার্তিক! যে মনুষ্য ভক্তিসহকারে প্রতিদিন তুলসীমঞ্জরি দিয়ে শ্রীহরির আরাধনা করেন, এমনকি আমিও তার পুণ্য বর্ণনা করতে অক্ষম। যেখানে শ্রীতুলসীর বন আছে, শ্রীগোবিন্দ সেখানেই বাস করেন। আর গোবিন্দের সেবার উদ্দেশ্যে লক্ষ্মী, ব্রহ্মা প্রভৃতি সমস্ত দেবতা সেখানেই বাস করেন।

যেখানে একটি মাত্র তুলসীবৃক্ষ আছে, সেইস্থানে ব্রহ্মা, বিষ্ণুশিব সকলে অবস্থান করেন। পত্রমধ্যে কেশব, পত্রাগ্রে প্রজাপতি, পত্রবৃত্তে শিব সর্বদাই ভাবামৃত আছেন। এর পুষ্পে লক্ষ্মী, সরস্বতী, গায়ত্রী, চন্দ্রিকা শচী প্রভৃতি দেবীগণ নিত্য বিরাজিত আছেন। ইন্দ্র, অগ্নি, শমন, বরুণ, পবনকুবের প্রভৃতি দেবগণ এর শাখাতে বাস করেন। ইন্দ্র আদিত্যাদি গ্রহ, বসু, মনু ও দেবর্ষি, বিদ্যাধর, গন্ধর্ব্ব প্রভৃতি সকল দেবগণ তুলসীপত্র আশ্রয় করে আছেন।

৩। সমগ্র বৈদিক শাস্ত্রের রচয়িতা শ্রীব্যাসদেব তুলসীদেবীর গুণ মহিমা পদ্মপুরাণের সৃষ্টিখণ্ডে (৬০/১২৭-২৮) অতি সুন্দরভাবে বর্ণনা করেছেন ━

❝ পূজনে কীর্তনে ধ্যানে রোপণে ধারণে কলৌ ।
তুলসী দহতে পাপং স্বর্গং মোক্ষং দদাতি॥
উপদেশং দিশেদস্যাঃ স্বয়মাচরতে পুনঃ।
স যাতি পরমং স্থানং মাধবস্য নিকেতনম্॥ ❞

অনুবাদ: শ্রীতুলসীদেবীর পূজা, কীর্তন, ধ্যান, রোপণ ও ধারণে সমস্ত পাপ নাশ হয় এবং পরমগতি লাভ হয়। যে ব্যক্তি অন্যকে তুলসী দ্বারা শ্রীহরির অর্চনার উপদেশ দেন, এবং নিজেও অর্চনা করেন, তিনি শ্রীমাধবের আলয়ে গমন করেন। শুধু শ্রীমতী তুলসীদেবীর নাম উচ্চারণ করলেই শ্রীহরি প্রসন্ন হন। ফলে পাপসমূহ নাশ হয় এবং অক্ষয় পুণ্যার্জিত হয়।

তুলসী মাহাত্ম্য (Tulasi Mahatyam)✸তুলসী পূজা ও বিধি-নিষেধ_3

৪। পদ্মপুরাণের ব্রহ্মখণ্ডে (৬/২২) বলা হয়েছে ━

❝ গঙ্গাদ্যাঃ সরিতঃ শ্রেষ্ঠা বিষ্ণুব্রহ্মামহেশ্বরাঃ।
দেবৈস্তীর্থৈঃ পুষ্করাদ্যৈস্তিষ্ঠান্ত তুলসীদলে॥ ❞
অনুবাদ: পুষ্করাদি সমস্ত তীর্থ, গঙ্গা আদি সমস্ত পবিত্র নদী, ব্রহ্মা-বিষ্ণু-মহেশ্বর সর্বদাই তুলসীদলে অবস্থান করেন।
পদ্মপুরাণে আরও বলা হয়েছে ━
❝ পুষ্করাদ্যানি তীর্থানি গঙ্গাদ্যাঃ সাধতস্তথা।
বাসুদেবাদয়ো দেবা বসন্তি তুলসীদলে॥ ❞
অনুবাদ: পুষ্করাদি সমস্ত তীর্থ, গঙ্গা দেবী, বাসুদেব প্রভৃতি দেবতা সর্বদাই তুলসীদলে অবস্থান করেন।
৫। পদ্মপুরাণে বর্ণিত রয়েছে ━
❝ যদগৃহে তুলসী ভাতি রক্ষাভির্জল-সেচনৈঃ।
তদগৃহং যমদূতাশ্চ দূরতো বৰ্জ্জয়ন্তি হি॥ ❞
অনুবাদ: যত্ন ও জল-সেচনাদি দ্বারা সুরক্ষিত হয়ে যে গৃহে তুলসী শোভিত হন, যমদূতগণ সেই গৃহ থেকে পরিত্যাগ করেন।
❝ তুলসী-কাননং বৈশ্য! গৃহে যস্মিংস্ত তিষ্ঠতি।
তদ্‌গৃহং তীৰ্থীভূতং হি নো যান্তি যম-কিঙ্করাঃ॥ ❞
অনুবাদ: হে বৈশ্য! যে গৃহে তুলসী-বন (তুলসী গাছের রাশি) বিদ্যমান, তা তীর্থ স্বরূপ; যমদূতগণ সেই গৃহের কাছেও যায় না
❝ তুলস্যাস্তৰ্পণং যে পিতৃনুদ্দিশ্য মানবাঃ।
কুৰ্ব্বন্তি তেষাং পিতরস্তৃ‌প্তা বর্ষাযুতং জলৈঃ॥ ❞
অনুবাদ: যে সকল মনুষ্য তুলসী-যুক্ত জলদ্বারা পিতৃতর্পণ করেন, তাদের পিতৃগণ সেই জলে দশ হাজার বছর তৃপ্ত থাকেন ।
❝ পরিচর্য্যাষ্ণ যো তস্যা রক্ষয়াবাল-বন্ধনৈঃ।
শুশ্রূষিতো হরিস্তৈস্তু নাত্র কার্য্যা বিচারণা ॥ ❞
অনুবাদ: যে সকল ব্যক্তি তুলসীর রক্ষার্থে ক্ষেতের ন্যায় আল বেঁধে (জল-সেচনাদি পূৰ্ব্বক) তাঁর পরিচর্য্যা করেন, তাদেরকে নিশ্চয়ই শ্রীবিষ্ণুরূপে পূজা করা হয়, তাতে কোন সন্দেহ নেই।
❝ নাবজ্ঞা জ্ঞাতু কাৰ্য্যাস্যা বৃক্ষভাবান্মনীষিভিঃ।
যথাহি বাসুদেবস্য বৈকুণ্ঠে ভোগ-বিগ্রহঃ ॥ ❞
অনুবাদ: মনুষ্যগণ তুলসীকে বৃক্ষ জ্ঞান করে কখনও অবজ্ঞা করবেন না, শ্রীবৈকুণ্ঠধামে শ্রীবাসুদেবের যে দেহ বিরাজমান, শ্রীতুলসীও সাক্ষাৎ সেই দেহ।” 

৬। তুলসীদেবীর অনন্তমহিমা ব্রহ্মবৈবর্তপুরাণের প্রকৃতিখণ্ডে (২২/৪২-৪৪) বর্ণিত রয়েছে ━

❝ শিরোধার্যাঞ্চ সর্বেসামীপ্সিতাং বিশ্বপাবনীম্।
জীবন্মুক্তাং মুক্তিদাঞ্চ ভজে তাম্‌ হরিভক্তিদাম্॥ ❞

অনুবাদ: যিনি সকলের শিরোধার্যা, উপাস্যা, জীবন্মুক্তা, মুক্তিদায়িনী এবং শ্রীহরিভক্তি প্রদায়িনী, সেই সমগ্র বিশ্বকে পবিত্রকারিণী বিশ্বপাবনী তুলসীদেবীকে সতত প্রণাম করি।

ব্রহ্মবৈবর্তপুরাণের প্রকৃতিখন্ডে (২১/৪৫ শ্লোকে) আরও বর্ণিত আছে ━
❝ নিত্যং যস্তুলসী দত্ত্বা পূজয়েন্মাঞ্চ মানবঃ।
লক্ষাশ্বমেধজং পুণ্যং লভতে নাত্র সংশয়ঃ॥ ❞
অনুবাদ:যে মনুষ্য প্রত্যহ তুলসীপত্র দিয়ে আমার পূজা করেন, নিঃসন্দেহে তার লক্ষ অশ্বমেধ যজ্ঞের ফল প্রাপ্ত হয়।
৭। স্কন্দপুরাণে বর্ণিত রয়েছে ━
❝ হিত্বা তীর্থ-সহস্রাণি সর্ব্বানপি শিলোচ্চয়ান্।
তুলসী-কাননে নিত্যং কলৌ তিষ্ঠতি কেশবঃ॥ ❞
অনুবাদ:কলিকালে শ্রীভগবান সহস্ৰ সহস্ৰ তীৰ্থ ও উন্নত পৰ্ব্বত সমূহ পরিত্যাগ করে সর্বদা তুলসী-বনে অবস্থান করেন।
❝ নিরীক্ষিতা নরৈর্যৈস্ত তুলসীবন-বাটিকা।
রোপিতা যৈশ্চ বিধিনা সংপ্রাপ্তং পরমং পদং॥ ❞
অনুবাদ:যে সকল ব্যক্তি তুলসীবন দর্শন করেন অথবা বিধিমতে তুলসী রোপণ করেন, পরিশেষে তারা বৈকুণ্ঠধাম লাভ করে থাকেন।
❝ দৃষ্টা স্পৃষ্টা তথা ধ্যাতা, কীৰ্ত্তিতা নমিতা শ্ৰুতা।
 রোপিতা সেবিতা নিত্যং পূজিতা তুলসী শুভা॥ ❞
অনুবাদ:প্রত্যহ তুলসীর (১)দর্শন, (২) স্পর্শন, (৩) ধ্যান, (৪) গুণ-কীৰ্ত্তন, (৫) প্রণাম, (৬) গুণ-শ্রবণ, (৭) রোপণ, (৮) জল সিঞ্চন দ্বারা সেবন ও (৯) তাঁর পূজা করলে কল্যাণ লাভ হয়ে থাকে।
❝ নবধা তুলসী নিত্যং যে ভজন্তি দিনে দিনে।
যুগ-কোটিসহস্রাণি তে বসন্তি হরেগৃহে॥ ❞
অনুবাদ:যারা প্রতিদিন এই নয় প্রকারে তুলসীর ভজনা করেন, তারা সহস্রকোটী যুগ অর্থাৎ অনন্তকাল পর্যন্ত বিষ্ণুলোকে বাস করেন।

❝ যস্মিন্ গৃহে দ্বিজশ্রেষ্ঠ! তুলসীমূল-মৃত্তিকা ।
সৰ্ব্বদা তিষ্ঠতে দেহে দেবতা ন স মানুষঃ॥ ❞

অনুবাদ:হে দ্বিজরাজ! যার গৃহে ও দেহে সর্ব্বদা তুলসী মূলমৃত্তিকা থাকে, তিনি মনুষ্য নয় ━ তিনি দেবতা।

❝ তুলসী-মৃত্তিকা যত্র কাষ্ঠং পত্রঞ্চ বেশ্মনি ।
তিষ্ঠতে মুনি-শার্দূল! নিশ্চলং বৈষ্ণবং পদং॥ ❞

অনুবাদ: হে মুনিবর! যে গৃহে তুলসী-মৃত্তিকা, তুলসী-কাষ্ঠ ও তুলসী-পত্র থাকে, সেই গৃহ নিশ্চয় বিষ্ণুর স্থান হয়।

❝ যস্য নাভিস্থিতং পত্রং মুখে শিরসি কর্ণয়োঃ ।
তুলসী-সম্ভবং নিত্যং তীর্থৈস্তস্য মখৈশ্চ কিং॥ ❞

অনুবাদ: সর্বদা যার নাভিতে, মুখে, মস্তকে ও কর্ণদ্বয়ে তুলসীপত্র অবস্থিত থাকে, তার আর তীর্থে গমন বা যজ্ঞ করার কি প্রয়োজন আছে?

❝ যদা ভক্তিরতো নিত্য নরো দহতি পাতকং ।
তুলসী ভক্ষণাৎ তদ্বৎ দতহতে পাপ-সঞ্চয়ং॥ ❞

অনুবাদ: ভক্তিমান ব্যক্তি যেমন প্রত্যহ ভক্তির অনুষ্ঠানের মাধ্যমে পাপ দাহ করেন, সেইরকম তুলসীপত্র ভক্ষণ করলেও সঞ্চিত পাপ দগ্ধ হয়ে যায়। 

❝ যুক্তো যদি মহাপাপৈ সুকৃতং নাৰ্জ্জিতং ক্বচিৎ ।
তথাপি গীয়তে মোক্ষস্তুলসী ভক্ষিতা যদি॥ ❞

অনুবাদ: যদি কোন ব্যক্তি সমস্ত মহাপাপযুক্তও হয় এবং কখনও পুণ্য কাৰ্য্য নাও করে থাকে, তবুও সে যদি তুলসীপত্র ভক্ষণ করে, তাহলে তার পরিত্রাণ লাভ হয়ে থাকে।

৮। অগস্ত্যসংহিতায় বর্ণিত রয়েছে ━

❝ তুলসী-বিপিনস্যাপি সমন্তাৎ পাবনং স্থলং।
ক্রোশমাত্রং ভবত্যেব গাঙ্গেয়স্যৈব পাথসঃ॥ ❞
অনুবাদ:গঙ্গার চতুর্দ্দিকে যেমন এক ক্রোশ পরিমিত স্থান পবিত্র, তুলসী-কাননে ও ঠিকই তদ্রূপ
❝ তুলসী-সন্নিধ্যৌ প্রাণান্ যে ত্যজন্তি মুনীশ্বর।
ন তেষাং নরক-ক্লেশ প্রয়ান্তি পরমং পদং॥ ❞
অনুবাদ:হে মুনিবর! যারা তুলসী-বৃক্ষের সামনে প্রাণত্যাগ করেন, তাদেরকে আর নরক-যন্ত্রণা ভোগ করতে হয় না ━ তারা বিষ্ণুলোকে গমন করেন।
❝ অনন্য-দর্শনাঃ প্রাতর্যে পশ্যন্তি তপোবন।
অহোরাত্র-কৃতং পাপং তৎক্ষণাৎ প্রহরন্তি তে॥ ❞
অনুবাদ:হে তপোধন! যারা প্রতিদিন প্রাতঃকালে উঠে অন্য বস্তু না দেখে প্রথমেই শ্রীতুলসীদেবীকে দর্শন করেন, তাদের দিবারাত্র অর্জিত পাপ তৎক্ষণাৎ ধ্বংস প্রাপ্ত হয়।” 
৯। গরুড়পুরাণে বর্ণিত রয়েছে ━
❝ তুলসী-কাননে যস্তু মুহূৰ্ত্তমপি বিশ্রমেৎ।
জন্মকোটি-কৃতাৎ পাপান্মচ্যুতি নাত্র সংশয়॥ ❞
অনুবাদ:যিনি মুহূর্তের জন্য তুলসী কাননে বিশ্রাম করেন, তিনি কোটি- জন্মাৰ্জ্জিত পাপ থেকে বিমুক্ত হন তাতে কোন সন্দেহ নেই
❝ যদগৃহে তুলসী-কাষ্ঠং পত্র শুষ্কমথাদ্রকং।
ভবতে নৈব পাপং তদ্‌গৃহে সংক্ৰমতে কলৌ॥ ❞
অনুবাদ:যে গৃহে, শুষ্কই হোক বা সতেজই হোক, তুলসী কাঠ কিংবা পত্র বিদ্যমান থাকে, এই কলিকালে সে গৃহে পাপ প্রবেশ করতে পারে না
❝ ত্রিকালং বিনতাপুত্র! প্রাশয়েতুলসীং যদি।
বিশিষ্যতে কায়শুদ্ধিশ্চান্দ্রায়ণ-শতং বিনা॥ ❞
অনুবাদ:হে গরুড়! যদি ত্রিসন্ধ্যা (সকাল, দুপুর ও বিকাল) তুলসীপত্র ভক্ষণ করা যায়, তাহলে শত চান্দ্রায়ণ (অর্থাৎ এক চান্দ্রমাসব্যাপী পালনীয় ব্রত) অপেক্ষাও অধিকতর দেহ-শুদ্ধি হয়ে থাকে অর্থাৎ সেক্ষেত্রে আর প্রায়শ্চিত্তের কোন আবশ্যক হয় না ৷
১০। হরিভক্তিসুধোদয় গ্রন্থে বর্ণিত রয়েছে ━

❝ নিত্যং সন্নিহিতো বিষ্ণুঃ সংস্পৃহস্-তুলসী-বনে ।
অপি মেহক্ষত-পত্ৰৈকং কশ্চিৎ-বন্যোঽপয়েদিতি॥ ❞

অনুবাদ:শ্রীবিষ্ণু সৰ্ব্বদা তুলসী-বনের কাছে এই অভিলাষ নিয়ে বাস করেন, যদি কোন ধন্য ব্যক্তি আমাকে একটি অখণ্ড তুলসীপত্র অর্পণ করে।

১১। বৃহন্নারদীয়পুরাণে বর্ণিত রয়েছে ━
❝ তুলসী-কাননং যত্র যত্র পদ্মবনানি চ।
পুরাণ-পঠনং যত্র তত্র সন্নিহিতো হরিঃ॥ ❞
অনুবাদ:যে স্থানে তুলসী-কানন থাকে, যে স্থানে পদ্মবন থাকে ও যেখানে পুরাণ পাঠ হয়, শ্রীহরি তথায় অবস্থিতি করেন
❝ তুলস্যাং সিঞ্চয়েদ্ যস্তু চুলুকোদক-মাত্রকং।
ক্ষীরোদাশায়িনা সার্দ্ধং বসেদাচন্দ্র তারকং॥ ❞
অনুবাদ:যে সকল ব্যক্তি শ্রীতুলসী-বৃক্ষে গন্ডূষমাত্র (হাতের তালুতে ধরে এমন পরিমাণ) জল অর্পণ করেন, তিনি যতদিন চন্দ্র-তারা থাকবে, ততদিন পর্যন্ত অর্থাৎ অনন্তকাল যাবৎ ক্ষীরোদাশায়ী বিষ্ণুর (শ্রীনারায়ণের) সাথে বাস করতে পারবেন।
❝ দৃদুৰ্ল্লভা তুলসী-সেবা দুৰ্ল্লভা সঙ্গতিঃ সতাং।
দুৰ্ল্লভা হরিভক্তিশ্চ সংসারার্ণব-পাতিনাং॥ ❞
অনুবাদ:সংসার-সমুদ্রে নিপতিত ব্যক্তিগণের পক্ষে তুলসী-সেবা দুৰ্ল্লভ, সাধুসঙ্গ দুর্লভ ও হরিভক্তি দুৰ্ল্লভ।
১২। হরিভক্তিবিলাস গ্রন্থে বর্ণিত রয়েছে ━
❝ কেশবায়াতনে যস্তু কারয়েতুলসী-বনং।
লভতে চাক্ষয়ং স্থানং পিতৃভিঃ সহ বৈষ্ণবঃ॥ ❞
অনুবাদ: যে ব্যক্তি শ্রীভগবদমন্দিরে তুলসী-বন প্রস্তুত করেন, সেই বৈষ্ণব-ব্যক্তি পিতৃপুরুষগণের সাথে অক্ষয় পদ অর্থাৎ শ্রীবৈকুণ্ঠধাম প্রাপ্ত হন
❝ তুলসী-কাননে শ্রাদ্ধং পিতৃণাং কুরুতে তু যঃ।
গয়া-শ্রাদ্ধং কৃতং তেন ভাষিতং বিষ্ণুনা পুরা॥ ❞
অনুবাদ: ভগবান বিষ্ণু বলেছেন━যিনি তুলসী-বনে পিতৃপুরুষের শ্রাদ্ধ করেন, ঐ শ্রাদ্ধ তার গয়ায় শ্রাদ্ধ করার তুল্য হয়ে থাকে
❝ যঃ কৃত্বা তুলসী-পত্রং শিরসা বিষ্ণু-তৎপরঃ।
করোতি ধৰ্ম্মকার্যাণি ফলমাপ্নোতি চাক্ষয়ং॥ ❞
অনুবাদ: যে বিষ্ণুপরায়ণ ব্যক্তি মস্তকে তুলসী-পত্র ধারণ করে ধর্ম্মকার্য্যসমূহের অনুষ্ঠান করেন, তিনি ঐ সমস্ত কার্য্যে অক্ষয় ফল লাভ করে থাকেন।
❝ শ্রীমৎ তুলস্যাঃ পত্রস্য মাহাত্ম্যং যদ্যপীদৃশং।
তথাপি বৈষ্ণবৈস্তন্ন গ্রাহ্যং কৃষ্ণাৰ্পণ বিনা॥ ❞
অনুবাদ: যদিও শাস্ত্রে শ্রীতুলসীপত্রের এইরূপ অনেক মাহাত্ম্য কীৰ্ত্তিত হয়েছে, তবুও বৈষ্ণবগণ শ্রীকৃষ্ণকে নিবেদন না করে তুলসীপত্রকে কখনও গ্রহণ করবেন না।
১৩। প্রহ্লাদসংহিতা বিষ্ণুধর্মোত্তর গ্রন্থে বর্ণিত রয়েছে ━
❝ পত্র পুষ্পং ফলং কাষ্ঠং ত্বকং শাখা পল্লবা-অঙ্কুরং।  
 তুলসী-সম্ভবং মূলং পাবনং মৃত্তিকাদ্যপি॥ ❞
অনুবাদ: তুলসীর পত্র, পুষ্প, ফল, কাষ্ঠ, ত্বক্, শাখা, পল্লব, অঙ্কুর, মূল, মৃত্তিকা প্রভৃতি সমস্তই পবিত্র
❝ শরীরং দহ্যতে যেষাং তুলসীকাষ্ঠ-বহ্নিনা।
ন তেষাং পুনরাবৃত্তির্বিষ্ণুলোকাৎ কথঞ্চন॥ ❞
অনুবাদ: তুলসী-কাষ্ঠের অগ্নিতে যাদের মৃতদেহ দগ্ধ করা হয়, তাদেরকে বিষ্ণুলোক থেকে আর কখনও প্রত্যাবর্তন করতে হয় না।
❝ গ্রস্তো যদি মহাপাপৈরগম্যা-গমনাদিকৈঃ।
মৃতঃ শুধ্যতি দাহেন তুলসী কাষ্ঠ-বহ্নিনা॥ ❞
অনুবাদ: অবৈধ নারীসঙ্গের কারনে মহাপাপে পাপী ব্যক্তিকে, যদি মৃত্যুর পর তুলসী-কাষ্ঠের অগ্নিতে দাহ করা যায়, তাহলে সে ব্যক্তি সমস্ত পাপ-মুক্ত হয়ে পবিত্ৰ হয়ে যায়।
❝ তীর্থং যদি ন সংপ্রাপ্তং স্মৃতির্রা কীর্ত্তনং হরেঃ।
তুলসীকাষ্ঠ-দগ্ধস্য মৃতস্য ন পুনর্ভবঃ ॥ ❞
অনুবাদ: যদি কোন ব্যক্তি তীর্থে গমন না করেও থাকে কিংবা যদি হরিস্মরণ ও হরিনাম-গুণকীৰ্ত্তন না করেও থাকে, তবুও মৃত্যুর পর তাকে তুলসী-কাষ্ঠ দিয়ে দগ্ধ করলে, তার আর পুনর্জন্ম হয় না।
❝ যদ্যেকং তুলসী-কাষ্ঠং মধ্যে কাষ্ঠচয়স্য হি।
দাহকালে ভবেন্মুক্তিঃ পাপকোটি-যুতস্য চ ॥ ❞
অনুবাদ: যদি কোন ব্যক্তির দাহকালে অন্যান্য কাষ্ঠের মধ্যেও একখণ্ড তুলসীকাষ্ঠ নিক্ষেপ করা যায়, তাহলে সে কোটী পাপে পাপী হলেও পাপহীন হয়ে পরিত্রাণ লাভ করে।” 

১৪। বায়ু তুলসীর গন্ধ নিয়ে যে যে দিকে গমন করে, সেই সেই দিক পবিত্র হয়।

১৫।তুলসীর দর্শনে পাপ ও রোগ নাশ হয়, স্পর্শের ফলে শরীর শুদ্ধ হয়, জল সিঞ্চনের ফলে ভয় দূর হয়, রোপণ করার ফলে ভগবদ্ভক্তি লাভ হয় এবং শ্রীকৃষ্ণের চরণে অর্পণ করার ফলে পূর্ণ ভগবৎ-প্রেম লাভ করা যায়, সেই তুলসীদেবীর চরণে আমি আমার সশ্রদ্ধ প্রণতি নিবেদন করি।  ━━ (স্কন্দ পুরাণ)

১৬। তুলসীকে বলা হয় কৃষ্ণ প্রেয়সী” অর্থাৎ শ্রীকৃষ্ণের পরম প্রিয়। তাই তুলসী ছাড়া শ্রীনারায়ণ পূজো বা শ্রীকৃষ্ণের পূজো হয় না।

১৭। ‘স্কন্দ পুরাণ’ আর ‘পদ্ম পুরাণে’ বলা হয়েছে ━━ যে মনুষ্যের গৃহে তুলসীবন রয়েছে, সেই গৃহ তীর্থ-স্বরূপ।

১৮। ‘গড়ুর পুরাণে’ বলা হয়েছে – তুলসী গাছ রোপন, দান ও তুলসী গাছের যত্ন নিলে মানুষের পূর্ব জন্মের পাপ ক্ষয় হয়

১৯। তুলসীবনে পিতৃশ্রাদ্ধ করলে তাহা পিতৃগণের অতিশয় প্রীতিপ্রদ হয়।

২০। যার গৃহে তুলসীতলার মাটি থাকে, তার গৃহে যমকিঙ্করগণ (যমরাজের আজ্ঞাবহ ভৃত্য) যেতে পারে না। তুলসী মাটি মেখে যদি কেউ প্রাণ ত্যাগ করে এবং সেই ব্যক্তি যদি ঘোরতর পাপী হয় তা  হলেও যমকিঙ্করগণ তাকে দেখতেও সমর্থ হয় না। 

২১। যিনি তুলসীমূলে দীপ দান করেন, তিনি বৈষ্ণবপদ লাভ করেন।

২২। নর্ম্মদা ও গোদাবরী নদীতে স্নান করলে যে পুণ্য হয়, একমাত্র তুলসীবন সংসর্গে সেই ফল লাভ হয়।

২৩। যিনি নিত্য তুলসী সেবা করেন তিনি সমসত ক্লেশ হতে মুক্ত গয়ে অভীষ্ঠ সিদ্ধি লাভ করেন। যে মনুষ্য তুলসী মঞ্জরী দিয়ে শ্রীহরির পূজা করেন, তাকে পুনরায় গর্ভবাস যন্ত্রনা ভোগ অর্থাৎ পুনর্জন্ম করতে হয় না। অর্থাৎ তার মোক্ষ লাভ হয়।

২৪। যে মনুষ্য বৈশাখ মাসে তুলসীবৃক্ষে জল সিঞ্চন করেন, তারা অশ্বমেধ যজ্ঞের ফল লাভ করেন।
২৫। তুলসীর মতো এমন পুণ্য ও মুক্তিপ্রদ বৃক্ষ আর নেই। তুলসী হাতে যদি কেউ মিথ্যা শপথ বা মিথ্যা কথা বলেন, তবে যতদিন চতুৰ্দ্দশ ইন্দ্র থাকেন, ততদিন তাকে ঘোর কুম্ভীপাক নরক যন্ত্রণা ভোগ করতে হয়।
২৬। ব্রহ্মবৈবর্তপুরাণে বর্ণিত আছে যে, সমগ্র পৃথিবীতে সাড়ে তিন কোটি তীর্থ আছে। তুলসীর মূলে সমস্ত তীর্থই অবস্থান করে। তুলসীদেবীর কৃপায় ভক্তবৃন্দ কৃষ্ণভক্তি লাভ করেন এবং বৃন্দাবনে বসবাসের যোগ্যতা অর্জন করেন।
২৭যে ব্যক্তি সম্পূর্ণ বৈশাখ মাস অনন্য ভক্তিসহকারে তুলসী (পত্র বা মঞ্জরী) দিয়ে ত্রিসন্ধ্যা (সকাল, দুপুর ও বিকাল) শ্রীকৃষ্ণের অর্চনা করেন, তার আর পুনর্জন্ম হয় না
২৮। তুলসী পত্র দ্বারা গণেশপূজা করতে নেই। ন তুলস্যাঃ বিনায়কং  ━━┉┈(স্মৃতি)
এভাবে শাস্ত্রে তুলসীপূজার বহু মাহাত্ম্য কীর্তিত হয়েছে। নামাচার্য শ্রীল হরিদাস ঠাকুর সর্বদা তুলসীকে সামনে রেখে হরিনাম জপ করতেন। পরমেশ্বর ভগবান শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভু, নামাচার্য হরিদাস ঠাকুর, শিব-পার্বতী, এমনকি শ্রীমতি রাধারাণী তুলসী সেবা আচরণের মাধ্যমে জীবকে তা অনুসরণ করার শিক্ষা দিয়েছেন। সুতরাং, কৃষ্ণভক্তি লাভেচ্ছু প্রত্যেক ব্যক্তির উচিত নিয়মিত তুলসীদেবীর আরাধনা করা।

x

Like it? Share with your friends!

211
180 shares, 211 points

Thanks for your interest joining to Bangla Kobita Club community.

Something went wrong.

Subscribe to Join Our Community List

Community grow with You. [Verify and Confirm your Email]